আমীরে জামায়াত

2019-12-05

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর ডা. শফিকুর রহমান-এর সংক্ষিপ্ত পরিচিতি

ডা. শফিকুর রহমান

বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে ডা. শফিকুর রহমান এক অনন্য নাম। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর চতুর্থ আমীর হিসেবে তিনি নির্বাচিত হন। এদেশের ইসলামপন্থী তৌহিদী জনতার আস্থার প্রতীক ডা. শফিকুর রহমান। ব্যক্তিগত, পারিবারিক, পেশাগত ও জাতীয় রাজনৈতিক জীবনে তিনি সততা, যোগ্যতা, মেধার স্বাক্ষর রেখে চলেছেন। দেশের প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও গণমানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছেন। জামায়াতে ইসলামীর আন্দোলনকে সারা দেশে ছড়িয়ে দেয়ার ক্ষেত্রে ডা. শফিকুর রহমান- এর ভূমিকা উল্লেখ করার মত। সংগঠনকে তৃণমূল পর্যন্ত পৌঁছানো ও সুস্থ সংগঠন হিসেবে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে তিনি অবিশ্রান্তভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

জন্ম :
জাতির এই সাহসী সন্তান ও প্রতিভাবান রাজনীতিবিদ ১৯৫৮ সালের ৩১ অক্টোবর মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া থানার এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মোহাম্মদ আবরু মিয়া এবং মাতার নাম খাতিরুন নেছা। শফিকুর রহমানেরা তিন ভাই ও এক বোন। ভাই-বোনদের মধ্যে তিনি তৃতীয়।

শিক্ষা ও ক্যারিয়ার :
ডা. শফিকুর রহমান ১৯৭৪ সালে স্থানীয় বরমচাল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এস এস সি এবং ১৯৭৬ সালে সিলেট এম সি কলেজ থেকে কৃতিত্বের সাথে এইচ এস সি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। তিনি ১৯৮৩ সালে সিলেট মেডিকেল কলেজ (বর্তমান এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ) থেকে এমবিবিএস ডিগ্রী অর্জনের পর চিকিৎসা সেবার পাশাপাশি রাজনীতিতে আত্মনিয়োগ করেন।

রাজনৈতিক জীবন :
বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী ডাঃ শফিকুর রহমান জাসদ ছাত্রলীগের মাধ্যমে ছাত্র রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন। ১৯৭৩ সালে জাসদ ছাত্রলীগে যোগদান করেন। ১৯৭৭ সালে দ্বীন প্রতিষ্ঠার প্রত্যয়দীপ্ত কাফেলা বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরে যোগদান করেন। পরবর্তিতে এই সংগঠনের সিলেট মেডিকেল কলেজ শাখার সভাপতি এবং সিলেট শহর শাখার সভাপতির দয়িত্ব পালন করেন।

১৯৮৪ সালে জামায়াতে ইসলামীতে যোগদানের মাধ্যমে তিনি বৃহত্তর রাজনীতিতে পদার্পন করেন। এরপর সিলেট শহর, জেলা ও মহানগরী আমীর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৬ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত জামায়াত ইসলামীর সেক্রেটারী জেনারেল হিসেবে নিযুক্ত হয়ে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৯ সালের ১২ নভেম্বর জামায়াতে ইসলামীর রুকনগণের (সদস্য) প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে আমীর নির্বাচিত হন এবং ২০১৯ সালের ৫ ডিসেম্বর ২০২০-২০২২ কার্যকালের জন্য তিনি আমীরে জামায়াত হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন।

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীতে উল্লেখযোগ্য দায়িত্বসমুহ:
১৯৮৫ : কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরার নির্বচিত সদস্য
১৯৮৬-৮৮ : সিলেট জেলা সেক্রেটারী
১৯৮৯-৯১ : সিলেট জেলা নায়েবে আমীর
১৯৯১-৯৮ : সিলেট জেলা আমীর
১৯৯৮ : কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য
১৯৯৮-২০০৭ : সিলেট মহানগর আমীর
২০১০ : এসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারী জেনারেল
২০১১ : নির্বাহী পরিষদ সদস্য
২০১১ : ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী জেনারেল
২০১৬ : সেক্রেটারী জেনারেল

২০১৯ : আমীরে জামায়াত

পারিবারিক জীবনঃ
ডা. শফিকুর রহমান ১৯৮৫ সালে ডা. আমিনা বেগমের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ডাঃ আমিনা বেগম অষ্টম জাতীয় সংসদের সদস্য ছিলেন। তিনি দুই মেয়ে ও এক ছেলের জনক। বড় মেয়ে এফসিপিএস (কার্ডিওলোজি) অধ্যয়নরত এবং একটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেজিস্ট্রারার হিসেবে কর্মরত। ছোট মেয়ে এমবিবিএস ও এমপিএইচ ডিগ্রী অর্জনের পর এখন একটি বেসরকারী মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক হিসাবে কর্মরত আছেন। একমাত্র ছেলে এমবিবিএস ৫ম বর্ষে (শেষ বর্ষ) অধ্যয়নরত।

সামাজিক কাজ :
জননেতা ডা. শফিকুর রহমান প্রখ্যাত রাজনীতিকই নন বরং তিনি একজন খ্যাতিমান সমাজ সেবক, বলিষ্ঠ সংগঠক এবং সফল উদ্যোক্তা। তিনি একটি বেসরকারী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। একনজরে আমরা ডা. শফিকুর রহমানের সামাজিক কাজের কিছু অংশ দেখবো।
১. একটি বেসরকারী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান
২. একটি হাইস্কুল ও কলেজ এর গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান হিসাবে বিভিন্ন মেয়াদে দায়িত্ব পালন
৩. একাধিক হাইস্কুলের ম্যানেজিং কমিটির চেয়ারম্যান হিসাবে বিভিন্ন মেয়াদে দায়িত্ব পালন
৪. একটি কামিল মাদ্রাসার গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন
৫. একাধিক ইয়াতিমখানা প্রতিষ্ঠার উদ্যোক্তা
৬. একাধিক দাতব্য হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা
৭. কয়েকটি মসজিদ প্রতিষ্ঠা
৮. ছাত্রজীবনে মেডিক্যাল কলেজের ছাত্র থাকা অবস্থায় স্বেচ্ছায় রক্তদানকারী ক্লাব ”পালস” প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি হিসাবে দায়িত্বপালন।
৯. একাধিক পাঠাগার প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনা
১০. সিলেট কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের আজীবন সদস্য
১১. বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির আজীবন সদস্য
১২. বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন (বিএমএ) এর আজীবন সদস্য
১৩. সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর সদস্য

বিদেশ ভ্রমনঃ
তিনি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সভা সেমিনারে যোগদানের জন্য যুক্তরাজ্য, ইতালি, জার্মানী, অষ্ট্রিয়া, স্পেন, গ্রীস, তুরস্ক, বেলজিয়াম, আয়ারল্যান্ড, সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ফিলিফাইন্স, ব্রুনাই ও মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করেন।