বিবৃতি

১ এপ্রিল ২০১৭, শনিবার, ৭:১১

আঃ লীগ নেতা কর্তৃক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনার তীব্র নিন্দা

মানুষ গড়ার কারিগর শিক্ষকগণ আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হাতে লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক

গত ৩০ মার্চ চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার এনায়েতপুরের বায়তুশ শরফ আদর্শ মাদ্রাসার সুপার মাওলানা ফরিদুল আলম ছাত্রলীগের হাটহাজারী উপজেলার সভাপতি আরিফুর রহমান কর্তৃক লাঞ্ছিত হওয়া, গত ২৬ মার্চ রাজশাহীর তানোর উপজেলার সরনজাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল মালেক কর্তৃক সরনজাই ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ ইসরত আলী লাঞ্ছিত হওয়া এবং গত ২৭ মার্চ ঝালকাঠি সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও ঝালকাঠী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সুলতান হোসেন খান কর্তৃক একটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল লতিফ মিয়াকে লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল ও সাবেক এমপি জনাব হামিদুর রহমান আযাদ আজ ১ এপ্রিল প্রদত্ত এক বিবৃতিতে বলেন, “শিক্ষকগণ মানুষ গড়ার কারিগর। তারা আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীদের হাতে লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক।

আমরা তীব্র ক্ষোভ ও বেদনার সাথে লক্ষ্য করে আসছি যে, আওয়ামী মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা বেপরোয়া হয়ে পড়েছে। তারা টেন্ডারবাজী, চাঁদাবাজী, দখলদারী, সিট বাণিজ্য, ভর্তি বাণিজ্য, ছাত্রীদের যৌন হয়রানী, মাদক সেবক এবং শিক্ষকগণকে লাঞ্ছিত করাসহ নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়েছে। তারা সরকারের পৃষ্ঠ-পোষকতায়ই এসব অপকর্মে লিপ্ত রয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষ ও সরকারী প্রশাসনের নাকের ডগায় বসেই তারা নানা অপকর্ম করছে। মনে হয় যেন তারা সবাই আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীদের হাতে জিম্মী হয়ে পড়েছে।

গত ৯ জানুয়ারী ২০১৭ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ তানজিম উদ্দিন খানকে লাঞ্ছিত করেছে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মনির হোসাইন, গত ২৬ ফেব্রুয়ারী রাজশাহী নিউ গভঃ ডিগ্রী কলেজের সহযোগী অধ্যাপক আবদুল আওয়াল আনসারীকে লাঞ্ছিত করেছে ছাত্রলীগ কর্মী ফাহিম, গত ২২ ফেব্রুয়ারী ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জে হাটবার বাজার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামকে লাঞ্ছিত করেছে ছাত্রলীগ নেতা ফিরোজ হোসেন। উদাহরণ আর না বাড়িয়ে বলা যায় যে, সারা দেশেই এভাবে ছাত্রলীগের হাতে শিক্ষক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনা অহরহ ঘটেই চলেছে।

স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং মন্ত্রীগণ আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগকে মদদ দিচ্ছেন। তাদের মদদেই আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ দুর্দমনীয় হয়ে পড়েছে। এখনই তাদের লাগাম টেনে না ধরলে তারা দেশকে জাহেলিয়াতের অন্ধকারের ঠেলে দিবে। আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীদের মদদ দিয়ে সরকার দেশকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছেন? তা গভীরভাবে চিন্তা করে দেখার জন্য সরকার এবং দেশের চিন্তাশীল সুশীল সমাজের প্রতি আমি আহ্বান জানাচ্ছি।

চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও ঝালকাঠিসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষকদের লাঞ্ছিত করার ঘটনার সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ তদন্ত করে ঐ সব ঘটনার সাথে জড়িত আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের দুর্বৃত্তদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।”