Friday, 22nd September, 2017
Choose Language:

সর্বশেষ
সংবাদ
জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে জোরপূর্বক ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্যই সরকার জামায়াত শিবিরের নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করছে
১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, রবিবার,
গত ১১ ফেব্রুয়ারী খুলনা উত্তর সাংগঠনিক জেলা জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারী অধ্যাপক মিয়া গোলাম কুদ্দুস এবং সহকারী সেক্রেটারী ও ফুলতলা উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত ভাইস-চেয়ারম্যান এটিএম গাউসুল আজম হাদী ও ফুলতলা সদর ইউনিয়ন জামায়াতের সভাপতি আবদুস সাত্তার গাজীকে এবং ১০ ফেব্রুয়ারী রাতে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ শাখা ইসলামী ছাত্রশিবিরের সভাপতি সুমনসহ ২ জন ছাত্রশিবির কর্মীকে পুলিশের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করার ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমীর ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার আজ ১২ ফেব্রুয়ারী প্রদত্ত এক বিবৃতিতে বলেন, “সরকার জামায়াতে ইসলামীকে তৃণমূল পর্যায় থেকে নেতৃত্বশূন্য করার হীন উদ্দেশ্যে যে ষড়যন্ত্র করছে তারই অংশ হিসেবে খুলনা উত্তর সাংগঠনিক জেলা জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারী অধ্যাপক মিয়া গোলাম কুদ্দুস এবং সহকারী সেক্রেটারী ও ফুলতলা উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত ভাইস-চেয়ারম্যান এটিএম গাউসুল আজম হাদী এবং ফুলতলা সদর ইউনিয়ন জামায়াতের সভাপতি আবদুস সাত্তার গাজীকে ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ শাখা ইসলামী ছাত্রশিবিরের সভাপতি সুমনসহ ২ জন ছাত্রশিবির কর্মীকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা সম্পূর্ণ নির্দোষ। 
 
সরকার রাজনৈতিকভাবে হয়রানি করার জন্যই জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করছে। জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে বর্তমান সরকার জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে জোরপূর্বক ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্যই সরকার গ্রেফতার অভিযান চালিয়ে জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করে জেলে পাঠাচ্ছে। এভাবে শক্তির জোরে বেশি দিন ক্ষমতায় টিকে থাকা যায় না। 
 
তাই জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের গ্রেফতারকৃত সকল নেতা-কর্মীকে অবিলম্বে মুক্তি প্রদান করার জন্য আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।”