Tuesday, 19th November, 2019
Choose Language:

সর্বশেষ
সংবাদ
ব্যারিস্টার আরমানের কোন প্রকার ক্ষতি সাধিত হলে তার সমূহ দায়-দায়িত্ব সরকারকেই বহন করতে হবে
১৩ আগস্ট ২০১৬, শনিবার,
বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য কারারুদ্ধ জনাব মীর কাসেম আলীর ছোট ছেলে ব্যারিস্টার মীর আহমাদ বিন কাশেম আরমানকে বাসা থেকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তুলে নেওয়ার পর বিগত ৯৬ ঘণ্টা অতিবাহিত হওয়া সত্ত্বেও তাকে আদালতে হাজির না করা কিংবা পরিবারের নিকট ফিরিয়ে না দেওয়ায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে এবং অবিলম্বে তাকে মুক্তি দেওয়ার দাবি জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার আজ ১৩ আগস্ট এক বিবৃতি প্রদান করেন। 
 
বিবৃতিতে অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেন, “কাউকে গ্রেফতারের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আদালতে হাজির করা যেখানে বাংলাদেশে উচ্চ আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী বাধ্যতামূলক সেখানে ৯৬ ঘণ্টা অতিবাহিত হওয়ার পরও ব্যারিস্টার মীর আহমাদ বিন কাশেম আরমানকে তার পরিবারের নিকট ফিরিয়ে না দেওয়ায় কিংবা আদালতে হাজির না করায় আমি তার জীবনের ব্যাপারে গভীর শঙ্কা প্রকাশ করছি। এভাবে দেশের একজন খ্যাতিমান আইনজীবীকে তার স্বজনদের সামনে বাসা থেকে তুলে নেয়ার পর তার স্বজনেরা আইনের আশ্রয় নিয়ে থানায় জিডি করতে গেলেও তাদের জিডি রেকর্ড করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। এটি সু¯ষ্টভাবে আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গলী প্রদর্শন এবং একজন নাগরিকের মানবাধিকার লংঘনের শামিল। 
 
কোন ছলচাতুরির আশ্রয় না নিয়ে তাকে অবিলম্বে মুক্তি দিয়ে আইনের প্রতি দায়বদ্ধতার প্রমাণ দেওয়া এবং একজন আইনজীবী হিসেবে তার পিতার মামলা পরিচালনায় তাকে যথাযথ ভূমিকা রাখার ক্ষেত্রে সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করার জন্য আমরা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি। এর যে কোন ব্যতিক্রম এবং ব্যারিষ্টার আরমানের কোন প্রকার ক্ষতি সাধিত হলে তার সমূহ দায়-দায়িত্ব সরকারকেই বহন করতে হবে। ব্যারিষ্টার আরমানের ওপর এ জঘন্য নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সোচ্চার হওয়ার জন্য আমরা দেশ-বিদেশের সকল মানবাধিকার সংগঠনসহ শান্তিকামী সকল মহলের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।”