Monday, 18th November, 2019
Choose Language:

সর্বশেষ
সংবাদ
দেশে সন্ত্রাস সৃষ্টি ও জঙ্গি হামলার প্রতিবাদে : দেশব্যাপী জামায়াতের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ কর্মসূচী পালিত
২৬ জুলাই ২০১৬, মঙ্গলবার,
বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরীর কর্মপরিষদ সদস্য এ্যাডভোকেট ড. হেলাল উদ্দীন বলেছেন, সাম্প্রতিক জঙ্গী হামলা, হত্যা, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যে জনমনে ত্রাসের সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু সরকার প্রকৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে এই ইস্যুতে বিরোধী দল দমনের অপতৎপরতায় লিপ্ত। আর সরকারের এই নেতিবাচক মনোবৃত্তির কারণেই অপরাধীরা আস্কারা পেয়ে অপরাধ ও জঙ্গী তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে। তাই দেশ ও জাতিকে সন্ত্রাস এবং জঙ্গীবাদ থেকে বাঁচাতে হলে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্যের কোন বিকল্প নেই। তিনি সরকারকে অপরাজনীতি পরিহার করে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ মোকাবেলায় কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের আহবান জানান। অন্যথায় দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বই বিপন্ন হতে পারে।
 
তিনি আজ রাজধানীতে দেশে সন্ত্রাস সৃষ্টি ও জঙ্গি হামলার প্রতিবাদে কেন্দ্র ঘোষিত শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ কর্মসূচীর অংশ হিসাবে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী আয়োজিত এক বিক্ষোভ পরবর্তী সমাবেশে একথা বলেন। বিক্ষোভ মিছিলটি রামপুরার বনশ্রী সড়ক থেকে শুরু হয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে রামপুরা টিভি ভবনের সামনে এসে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগীর কর্মপরিষদ সদস্য অধ্যাপক মোকাররাম হোসাইন খান, মজলিশে শুরা সদস্য শামসুর রহমান, পল্টন থানা সেক্রেটারি আমিনুর রহমান, মতিঝিল থানা সেক্রেটারি মুতাসিমবিল্লাহ, শিবিরের ঢাকা মহানগরী পূর্বের সেক্রেটারি সোহেল রানা মিঠু, ছাত্রনেতা ঈমাম হোসাইন, যুবায়ের, আব্দুর রহমান ও জুয়েল প্রমূখ।
 
ড. হেলাল উদ্দীন বলেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদী অপতৎপরতা মোকাবেলায় সরকার আন্তরিক বলে মনে হয় না। এ বিষয়ে সরকারের রহস্যজনক ভূমিকা জনমনে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে জনগণ এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। সরকারের দোষারোপের রাজনীতি পরিস্থিতিকে আরো জটিল হতে জটিলতর করে তুলছে। কিন্তু দেশ ও জাতির বৃহত্তর স্বার্থে আমাদের এই বৃত্ত থেকে বেড়িয়ে আসার কোন বিকল্প নেই। গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের চর্চার অভাবেই হত্যা, সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও জঙ্গীবাদের সৃষ্টি হয়েছে। তাই এ অবস্থা থেকে বাঁচতে হলে অবাধ গণতানিন্ত্রক চর্চার কোন বিকল্প নেই। তিনি গণতান্ত্রিক সমাজ বিনির্মাণে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান। 
 
মিরপুর জোন
দেশে সন্ত্রাস সৃষ্টি ও জঙ্গী হামলার প্রতিবাদে কেন্দ্র ঘোষিত শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ কর্মসূচীর অংশ হিসাবে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগীর মিরপুর জোন আয়োজিত এক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি মিরপুর ১০নং গোল চত্তর থেকে শুরু হয়ে ফায়ার সার্ভিসের সামনে দিয়ে নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে বেনারসি পল্লীর ১নং গেইটে এসে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগরীর কর্মপরিষদ সদস্য মাহফুজুর রহমান। উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগরীর মজলিশে শুরা সদস্য প্রফেসর আনোয়ারুল করিম, মোস্তাফিজুর রহমান, আশরাফুল আলম, আবুল হাসান, নূরুল ইসলাম, নাসির উদ্দীন ও জাসীম উদ্দীন, জামায়াত নেতা আলাউদ্দীন মোল্লা, কমিশনার আব্দুল মতিন, জামায়াত নেতা আবু হানিফ, শিবিরের ঢাকা মহানগরী পশ্চিমের সভাপতি ডা. মুজাহিদুল ইসলাম, সেক্রেটারি আব্দুল আলীমসহ থানা সভাপতি ও সেক্রেটারিবৃন্দ।
 
সমাবেশে মাহফুজুর রহমান বলেন, সরকারের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ পৃষ্ঠপোষকতা পেয়েই জঙ্গীরা বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে। সরকার জঙ্গী দমনের নামে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ দমন করে তাদের অবৈধ ক্ষমতাকে দীর্ঘায়িত করতে চায়। কিন্তু সরকারের সে ষড়যন্ত্র জনগণ কোন ভাবেই সফল হতে দেবে না। তিনি সরকারকে অপরাজনীতি পরিহার করে প্রকৃত জঙ্গীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আহবান জানান। অন্যথায় সরকারকে একদিন জনগণের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।

এছাড়াও চট্টগ্রাম, সিলেট, রংপুর, রাজশাহী, কুমিল্লা, গাজীপুর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, পাবনা, বগুড়া, নীলফামারী, ঠাকুরগাঁও, নাটোর, বরিশাল, বাগেরহাট, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, মাগুরা, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, ময়মনসিংহ, কক্সবাজারসহ সারাদেশেই শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ কর্মসূচী পালিত হয়েছে।