Tuesday, 19th November, 2019
Choose Language:

সর্বশেষ
সংবাদ
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অসত্য বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদঃ জঙ্গীদের সাথে জামায়াত ও ছাত্রশিবিরের দুরতম কোন সম্পর্ক ছিলনা এবং বর্তমানেও নেই
২৬ আগস্ট ২০১৬, শুক্রবার,
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল আজ ২৬ আগস্ট দুপুরে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ছাত্রলীগের আয়োজিত এক সমাবেশে গোয়েন্দাদের বরাত দিয়ে জঙ্গীবাদে জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের ইন্ধন থাকার ইংগিত দিয়ে যে ভিত্তিহীন মিথ্যা বক্তব্য দিয়েছেন তার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও সাবেক এমপি জনাব হামিদুর রহমান আযাদ আজ ২৬ আগস্ট প্রদত্ত এক বিবৃতিতে বলেন, “স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল গোয়েন্দাদের বরাত দিয়ে ‘জঙ্গীবাদের প্রতি জামায়াত ও ছাত্রশিবিরের ইন্ধন থাকার’ যে ইংগিত দিয়েছেন  তা মোটেই সত্য নয়। 
 
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের জবাবে আমি স্পষ্টভাষায় জানাতে চাই যে, জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবির নিয়মতান্ত্রিক গণতান্ত্রিক ধারার স্বচ্ছ রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। জঙ্গীদের সাথে জামায়াত ও ছাত্রশিবিরের কোন সম্পর্ক নেই। কাজেই গ্রেফতারকৃত জঙ্গীদের জিজ্ঞাসাবাদে জামায়াত ও ছাত্রশিবিরের সাথে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করার প্রশ্নই আসে না। 
 
গুলশানে হামলার ঘটনার রাতে জঙ্গীদের গ্রেফতার করার অভিযান শুরুর পূর্বেই একমাত্র জামায়াতে ইসলামীর পক্ষ থেকে প্রদত্ত বিবৃতিতে দাবী জানানো হয়েছিল যে, হামলাকারী জঙ্গীদের যেন জীবন্ত অবস্থায় গ্রেফতার করা হয় যাতে দেশবাসী জঙ্গীদের পরিচয় জানতে পারে এবং কারা এ হামলার পেছনে রয়েছে তাও জানতে পারে। জামায়াত সন্ত্রাসমুক্ত, সৎ ও স্বচ্ছ গণতান্ত্রিক ধারার রাজনীতি করে বলেই সৎ সাহসের সাথে এ দাবী জানিয়েছিল। এ থেকেই প্রমাণিত হয় যে, কোন ধরনের জঙ্গীবাদী সন্ত্রাসী তৎপরতার সাথে জামায়াত ও ছাত্রশিবিরের কোন ধরনের সম্পৃক্ততা নেই। 
 
গুলশানে হামলার ঘটনায় জড়িত জঙ্গীদের ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিচয় প্রকাশিত হওয়ার পর জাতির নিকট স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে যে, ঐ হামলার ঘটনায় কারা জড়িত। প্রকৃত সত্য ঢাকা দেয়ার হীন উদ্দেশ্যেই এখন জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভিত্তিহীন মিথ্যা প্রচারণা চালানো হচ্ছে।
 
সুতরাং জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের প্রতি ইংগিত করে কাল্পনিক বক্তব্য প্রদান করা থেকে বিরত থাকার জন্য আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।”