Wednesday, 08th April, 2020
Choose Language:

সর্বশেষ
সংবাদ
জনাব হানিফ জামায়াতকে জড়িয়ে যে ভিত্তিহীন মিথ্যা বক্তব্য দিয়েছে তা আওয়ামী লীগের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য
২২ জুলাই ২০১৬, শুক্রবার,
গত ২১ জুলাই জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক আয়োজিত এক কর্মশালায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জনাব মাহবুব-উল-আলম হানিফ প্রদত্ত বক্তব্যে “বিএনপি-জামায়াতকে মোসাদ ও সিআই-এর এজেন্ট আখ্যা দিয়ে বিএনপি-জামায়াত মোসাদের সাথে হাত মিলিয়ে দেশে জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করছে” মর্মে যে ভিত্তিহীন মিথ্যা বক্তব্য প্রদান করেছেন তার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও সাবেক এমপি জনাব হামিদুর রহমান আজাদ আজ ২২ জুলাই প্রদত্ত এক বিবৃতিতে বলেন, “আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জনাব মাহবুব-উল-আলম হানিফ জামায়াতে ইসলামীকে জড়িয়ে যে ভিত্তিহীন মিথ্যা বক্তব্য দিয়েছে তা আওয়ামী লীগের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। জামায়াতে ইসলামীর ক্ষেত্রে তা আদৌ প্রযোজ্য নয়।
 
দেশবাসী সকলেই জানেন যে, জেএমবির নিহত নেতা শায়খ আবদুর রহমান আওয়ামী লীগ নেতা মীর্যা গোলাম আযমের ভগ্নিপতি, গুলশানে রেস্টুরেন্টে হামলাকারী ৫ জন জঙ্গীর একজন আওয়ামী লীগের নেতা ইমতিয়াজ খান বাবুলের পুত্র রোহান ইবনে ইমতিয়াজ, সিঙ্গাপুরে জঙ্গিবাদী তৎপরতায় জড়িত থাকার অভিযোগে সাজাপ্রাপ্ত জঙ্গিদের একজন চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগের নেতা নূরুল ইসলামের পুত্র জাবেদ কায়সার ও রাজশাহী মহানগরীর সাবেক মেয়র এবং আওয়ামী লীগের নেতা খায়রুজ্জামান লিটনের চাচাতো ভাই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের নেতা মুনতাসিরুল ইসলাম অনিন্দ্যের সাথে জঙ্গি কানেকশন থাকায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ সব ঘটনার দ্বারাই কী প্রমাণিত হয় না যে, আওয়ামী লীগই মোসাদের সাথে হাত মিলিয়ে জঙ্গি সৃষ্টি করেছে। এখন তারা নিজেদের দোষ এড়ানোর জন্য জামায়াত ও ছাত্রশিবিরের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে পানি ঘোলা করার অপচেষ্টা চালাচ্ছেন। 
 
আমি স্পষ্ট ভাষায় জানাতে চাই যে, জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাথে জঙ্গিবাদের কোন সম্পর্ক নেই। আওয়ামী লীগ সরকারই ইসলাম বিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত রয়েছে এবং জঙ্গিবাদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছে। সরকারের একদলীয় স্বৈরশাসন ও ইসলাম বিরোধী কর্মকা-ের প্রতিক্রিয়াতেই জঙ্গিবাদ সৃষ্টি হয়েছে। 

জামায়াতে ইসলামীর বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন মিথ্যা প্রচারণা চালানো থেকে বিরত থাকার জন্য আমি জনাব মাহবুব-উল-আলম হানিফের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।”