Thursday, 21st January, 2021
Choose Language:

সর্বশেষ
সংবাদ
মাওলানা নিজামীকে হত্যার সরকারি ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে ও অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে তাৎক্ষণিক দেশব্যাপী বিক্ষোভ
৫ মে ২০১৬, বৃহস্পতিবার,
বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় মজলিশে শুরা সদস্য ড. মু. রেজাউল করিম বলেছেন, সরকার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে রাজনৈতিক ও আদর্শিকভাবে মোকাবেলা ব্যর্থ হত্যা ও ষড়যন্ত্রের পথে বেছে নিয়েছে। তারা বরেণ্য আলেম দ্বীন, সাবেক সফল মন্ত্রী ও আমীরে জামায়াতকে নির্মম ও নিষ্ঠুরভাবে হত্যার গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। কিন্তু সচেতন জনতা সরকারের সে ষড়যন্ত্র কখনোই মেনে নেবে না। তিনি সরকারকে হত্যা ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতি পরিহার করে অবিলম্বে আমীরে জামায়াত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদন্ডাদেশ বাতিল করে নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন। অন্যথায় সরকারকে ইতিহাসের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।

তিনি আজ রাজধানীর বাড্ডায় আমীরে জামায়াত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে হত্যার সরকারি ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে ও অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী আয়োজিত এক বিক্ষোভ পরবর্তী সমাবেশে একথা বলেন। বিক্ষোভ মিলিটি বাড্ডা থেকে শুরু হয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে সমাবেশের মাধ্যশে শেষ হয়। সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগরী শুরা সদস্য সালাহউদ্দীন, জামায়াত নেতা সাইফুল ইসলাম, ড.আহসান হাবিব, শেখ নেয়ামুল করিম, জিল্লুর রহমান ও ছাত্রনেতা জামিল মাহমুদ প্রমুখ।
 
ড. রেজাউল করিম বলেন, আমীরে জামায়াত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী একজন প্রবীণ রাজনীতিবিদ, প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন ও সাবেক সফল মন্ত্রী। তিনি পাবনা জেলার সাাঁথিয়া ও বেড়া নির্বাচনী এলাকা থেকে ১৯৯১ এবং ২০০১ সালে দুইবার বিপুল ভোটে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে জাতীয় সংসদে জাতির স্বার্থে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। তার নির্বাচনী এলাকার উন্নয়নে তিনি অভূতপূর্ব অবদান রেখেছেন এবং নির্বাচনী এলাকার সর্বস্তরের জনগণ তাকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। তার বিরুদ্ধে ১৯৭১ সালের ভূমিকা নিয়ে কেউ কোন প্রশ্ন তুলেনি। ১৯৭১ সালের পর তার বিরুদ্ধে মামলা তো দূরের কথা বাংলাদেশের কোন থানায় একটি জিডি পর্যন্ত হয়নি। তাকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলায় ব্যর্থ হয়ে সরকার তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে দলীয় লোকদের দ্বারা মিথ্যা সাক্ষী দিয়ে তাকে দুনিয়া হত্যার গভীর ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে। কিন্তু ইতিহাস সাক্ষী হত্যা করে জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে অতীতে কোন আদর্শকে নির্মূল করা যায়নি, আর কখনো যাবেও না। তিনি সরকারের দেশ ও জাতিস্বত্ত্বাবিরোধী ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান। 

উত্তরা এলাকাঃ
বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর ও বিশ্ব ইসলামী আন্দোলনের অন্যতম নেতা মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে হত্যা চেষ্টার সরকারী ষড়যন্ত্রে প্রতিবাদে উত্তরা জোন দুপুর ১২ টায় হাউজ বিল্ডিং এলাকায় এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত ¡দেন উত্তরা জোন পরিচালক ইবনে কারিম আহম্মেদ।  উপস্থিত ছিলেন মহানগরীর শুরার সদস্য আবু উমার, বিমানবন্দর থানা আমীর,উত্তরা পূর্বের থানা আমীর, দক্ষিনখান থানার আমীর,খিলক্ষেত থানা আমীর ও বিভিন্ন থানার সেক্রেটারীগণ সহ ইসলামী ছাত্র শিবিরের ঢাকা মহানগরী উত্তরের নেতৃবৃন্দ ও বিভিন্ন থানার সভাপতি সেক্রেটারী বৃন্দ।মিছিলটি মেইন রাস্তা প্রদক্ষিন শেষে এক পথ সভার মাধ্যমে শেষ হয়। পথসভায় বক্তব্য রাখেন জনাব আবু উমার।
 
মোহাম্মদপুর জোন ঃ
আমীরে জামায়াত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে হত্যার সরকারি ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে ও অভিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে মোহাম্মদপুর জোনের উদ্যোগে দুপুর ১২.৩০ টায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি গ্রিনরোড থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সরক প্রদক্ষিণ করে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগরীর কর্মপরিষদ সদস্য মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন, মহানগরী শুরা সদস্য শেখ শরিফ উদ্দিন আহমেদ, জিয়াউল হাসান ও  শফিউর রহমান, শিবিরের মহানগরী পশ্চিম এর সভাপতি খালিদ মাহমুদ, প্রাইভেট সভাপতি সাদমান সালেক, ঢাকা কলেজ সভাপতি- রিফাত হাসান মুন্না, জামায়াত নেতা মোহাম্মদ আলী, আব্দুর রহমান, আব্দুল হান্নান, মুহিবুল হক ফরিদ, আখতারুজ্জামান, আব্দুল ওয়াজেদ, ছাত্র নেতা আব্দুল আলিম, মিজানুর রহমান, রাজিব, রবিউল ইসলাম, মোখলেছুর রহমান, মামূন ও সাকিব প্রমুখ।
 
মিরপুর অঞ্চল: 
আমীরে জামায়াত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে হত্যার সরকারি ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে ও অভিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে রাজধানীর মিরপুর-১০এর গোল চত্ত¦রে মিরপুর জোনের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরীর কর্মপরিষদ  সদস্য মাহফুজুর রহমান, কাফরুল থানা আমীর অধ্যাপক আনোয়ারুল করিম, মিরপুর পশ্চিম আমীর নুরুল ইসলাম আকন্দ, শাহ আলী থানা আমীর মিজানুল হক, ভাষানটেক সেক্রেটারী আলাউদ্দিন মোল্লা ও জামায়াত নেতা জসিম উদ্দীন প্রমূখ। 
 
পল্টন-মতিঝিল-খিলগাঁও: 
আমীরে জামায়াত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে  হত্যার সরকারী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে  বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী পল্টন ও মতিঝিল জোনের উদ্যোগে আজ দুপুর ১টায় রামপুরা ব্রিজ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আইডিয়াল  স্কুলের সামনে গিয়ে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন ঢাকা মহানগরী মজলিসে শূরা সদস্য ও শাহজাহানপুর থানা আমীর শামসুর রহমান। উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগরী মজলিসে শূরা সদস্য ও মতিঝিল থানা আমীর কামাল হোসাইন, ঢাকা মহানগরী মজলিসে শূরা সদস্য ও খিলগাঁও থানা আমীর সগির বিন সাঈদ, ঢাকা মহানগরী মজলিসে শূরা সদস্য ও মুগদা থানা আমীর মতিউর রহমান, শিবির ঢাকা মহানগরী পূর্ব শাখার সভাপতি শরীফুল ইসলাম ও সেক্রেটারী সোহেল রানা মিঠু, জামায়াত মতিঝিল থানা সেক্রেটারী মোতাসিম বিল্লাহ, রামপুর থানা সেক্রেটারী হাসান ইমাম, শাহজাহানপুর থানা সেক্রেটারী হাফেজ সাইদুর রহমান,  সবুজবাগ থানা থেকে আব্দুল বারী, ওয়ারী থানার সেক্রেটারী প্রফেসর আবদুস সালাম, সূত্রাপুর থানা সেক্রেটারী শোয়েব হোসেন ও শিবির পল্টন থানার সভাপতি নুরুল ইসলাম প্রমুখ। 
 
যাত্রাবাড়ী অঞ্চলঃ 
বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর ও বিশ্ব ইসলামী আন্দোলনের অন্যতম নেতা মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে হত্যা চেষ্টার সরকারী ষড়যন্ত্রে প্রতিবাদে যাত্রাবাড়ীর শনিরআখড়া এলাকায় দুপুর দেড়টার সময় বিক্ষোভ মিছিল করে জামায়াতে ইসলামী যাত্রাবাড়ী জোনের নেতাকর্মীরা। ঢাকা মহানগরীর শূরা সদস্য হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে মিছিলে অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন যাত্রাবাড়ী পূর্ব থানা আমীর নিজামুল হক, যাত্রাবাড়ী পশ্চিম থানা সেক্রেটারী আবু ফাতেহ, কদমতলী পশ্চিমের আমীর আব্দুর রহিম, জামায়াত নেতা শাহজাহান খান, নেছার আহমেদ, আতিকুর রহমান, ছাত্রনেতা সাদেক বিল্লাহ, মজিবুর রহমান মঞ্জু, আব্দুল মাবুদ ও মাসুম তারিফ প্রমুখ।
 
লালবাগ জোনঃ 
আমীরে জামায়াত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে হত্যার সরকারী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে লালবাগ জোনের উদ্যোগে আজ দুপুর ১২ টায় মিটফোর্ড থেকে শুরু হয়ে বাবুবাজার দিয়ে নয়া বাজারে গিয়ে  সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। মিছিলে নেতৃত্ব দেন ঢাকা মহানগরী মজলিসে শূরা সদস্য ও কোতয়ালী থানা আমীর আবু আব্দুল্লাহ।  উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগরী মজলিসে শূরা সদস্য ও বংশাল থানা আমীর আজমল হোসাইন ও মহানগরী মজলিসে শূরা সদস্য  লালবাগ থানা আমীর আবু আনাস, জামায়াত নেতা আল আমিন ও  মাহমুদুল হাসান, কোতয়ালী থানা সেক্রেটারী এন আর আজাদ, কামরাঙ্গীচর থানা  সেক্রেটারী মাহমুদুর রহমান, জামায়াত নেতা আবু সা’দ, মনির হোসেন, তাফাজ্জল হোসাইন, নুরে আলম, গিয়াস উদ্দিন, আবু হানিফ, ছাত্রনেতা রিফাত, আবদুল জলিল, বেলাল হোসাইন ও তানভীর প্রমুখ।  

এছাড়াও রাজশাহী, বরিশাল, খুলনা, রংপুর, কুমিল্লা, গাজীপুর, নোয়াখালী, দিনাজপুর, ময়মনসিংহ, পাবনা, ফেনী, সিরাজগঞ্জ, ফরিদপুর, সাতক্ষীরা, ফরিদপু্‌র, নারায়াণগঞ্জ, বরগুনা, টাঙ্গাইল, মৌলভীবাজার, সুনামগঞ্জ, কক্সবাজার, ও দেশের আরো বিভিন্ন স্থানে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।