Friday, 21st February, 2020
Choose Language:

সর্বশেষ
সংবাদ
অধ্যক্ষ মহারাজ যজ্ঞেশ্বর রায়কে গলা কেটে হত্যা করার ঘটনার তীব্র নিন্দা
২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬, রবিবার,
পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার সন্তগৌরীয় মঠের অধ্যক্ষ মহারাজ যজ্ঞেশ্বর রায়কে দুর্বৃত্তদের গলা কেটে হত্যা এবং তার সহকারী গোপাল চন্দ্র রায় তার সাহায্যে এগিয়ে আসলে তাকে গুলি করে আহত করার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারী জেনারেল ডাঃ শফিকুর রহমান আজ ২১ ফেব্রুয়ারী প্রদত্ত এক বিবৃতিতে বলেন, “একটি বিশেষ মহল পরিকল্পিতভাবে ভিন্ন ধর্মের দায়িত্বশীল লোকদের বিভিন্ন সময়ে হত্যা করছে এবং অনেককে আহতও করেছে। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই অজ্ঞাত কারণে আইন-শৃক্সখলা রক্ষাকারী বাহিনী ঐ সব হত্যাকারীদেরকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে পারেনি। ফলে একের পর এক এ ধরনের নৃশংস হত্যাকাণ্ড ঘটেই যাচ্ছে। 
 
জাতি উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার সাথে ঢাকার হোসাইনী দালানে, বগুড়ার শিয়া মসজিদে, দিনাজপুরে কান্তজীর মন্দিরে, ঈশ্বরদীতে খ্রীস্টানদের যাজকের ওপর নৃশংস হামলার ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছে। কিন্তু সরকার আজ পর্যন্ত কোন একটি ঘটনারই সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ তদন্ত করে দুর্বৃত্তদের গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনতে পারেনি। 
 
অতীতে দেখা গিয়েছে যে, সরকার প্রকৃত দোষীদের চিহ্নিত না করে বিভিন্ন সময়ে সংঘটিত হত্যাকাণ্ডের দায়-দায়িত্ব রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের ওপর চাপানোর অপচেষ্টা চালিয়েছে। ফলে প্রকৃত খুনিরা আড়ালেই থেকে যাচ্ছে। আমি পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার সন্তগৌরীয় মঠের অধ্যক্ষ মহারাজ যজ্ঞেশ্বর রায়কে গলা কেটে হত্যা করার ঘটনার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি। তার পরিবার-পরিজনদের প্রতি সহানুভূতি জ্ঞাপন করছি এবং তার আহত সহকারীর সুচিকিৎসার দাবি জানাচ্ছি ও দ্রুত সুস্থতা কামনা করছি। 
 
সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত সন্ত্রাসীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি বিধানের জন্য আহবান জানাচ্ছি।”