২৮ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার
Choose Language:

সর্বশেষ
ট্রাইবুনাল
২১ আগস্ট মামলার পরবর্তী শুনানী ৯ এপ্রিল
৯ এপ্রিল ২০১২, সোমবার,

Wednesday, 28th March, 2012
একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা সংক্রান্ত হত্যা ও বিস্ফোরক মামলায় জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ৫২ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহনের বিষয়ে পরবর্তী শুনানী ৯ এপ্রিল। গতকাল বুধবার পুরানো ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন এ শুনানীর দিন ধার্য করেন।
গতকাল মামলার সাক্ষ্য দিতে আদালতে হাজির হন সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ড. মহিউদ্দিন খান আলমগীর। তাকে গত রোববার সাক্ষ্য দিতে আদালতে আসতে সমন দেয়া হয়েছিল। ড. মহিউদ্দিন খান আলমগীর গত বছর ৩ জুলাই আদালতে দাখিল করা সম্পূরক চার্জশিটের এক নম্বর সাক্ষী। সম্পূরক চার্জশিটে মহিউদ্দিন খান আলমগীর ছাড়াও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ ৮৩ জন সাক্ষী রয়েছে।
মামলার সম্পুরক চার্জশিট ভুক্ত সাবেক মন্ত্রী আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, সাবেক দু\' পুলিশ মহাপরিদর্শক মো. আশরাফুল হুদা ও শহিদুল হক, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ভাগ্নে লে. কমান্ডার (অব.) সাইফুল ইসলাম ডিউক, সাবেক বিএনপি দলীয় ওয়ার্ড কমিশনার আরিফুল ইসলাম আরিফ আগে এ মামলায় নেওয়া ৬১ জন সাক্ষীকে পুনরায় আদালতে হাজির করে জেরা করার আবেদন করেন।
এই সাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণের আগে মহিউদ্দিন খান আলমগীরের সাক্ষ্যগ্রহণ মুলতবি রাখার আবেদন করেন তাদের আইনজীবীরা। তারা বলেন, সম্পূরক চার্জশিটে তাদের আসামি হয়েছেন। আর ৬১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ নেওয়া হয়েছে সম্পূরক চার্জশিট হওয়ার আগে। এই সাক্ষীদের সাক্ষ্যও এই আসামিদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হবে। তাই আইন অনুযায়ী তাদের সাক্ষ্য পুনরায় নেওয়া প্রয়োজন। এ ব্যাপারে আইনজীবীরা বিভিন্ন আইনের ব্যাখ্যাও আদালতের সামনে উপস্থাপন করেন।
আসামিপক্ষের ৬১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য পুনরায় নেওয়ার আবেদনের বিরোধিতা করেন স্পেশাল পিপি সৈয়দ রেজাউর রহমান। পুনরায় তাদের সাক্ষ্যগ্রহণের প্রয়োজন নেই বলে তিনি জানান।
আদালত এ ব্যাপারে তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত না দেওয়ায় মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ পিছিয়ে আগামী ৯ এপ্রিল সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য পুনরায় দিন ধার্য করেন।
এ ব্যাপারে আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের আইনজীবী এডভোকেট আবদুর রাজ্জাক বলেন, মূল চার্জশিটে আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের নাম নেই। তাকে সম্পূরক চার্জশিটে জড়ানো হয়েছে। তাই ইতিমধ্যে দেয়া ৬১ জন সাক্ষীকে পুনরায় জেরা করা প্রয়োজন। না হলে আমরা ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত হবো।