১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার
Choose Language:

সর্বশেষ
চলতি বিষয়াবলি
চট্টগ্রাম নগর ভবনে টেন্ডার নিয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্র“পে সংঘর্ষ, গুলি
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, বৃহস্পতিবার,
কর্ণফুলী নদীর ১৪ নম্বর ঘাটের টেন্ডার নিয়ে গতকাল চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মূল ভবনে (নগর ভবন) ছাত্রলীগের দুইপরে মধ্যে সংঘর্ষ ও গুলিবিনিময় হয়েছে। নগর ভবনের ভেতরে তারা ভাঙচুর করে। এ সময় সিটি কপোরেশনের অদূরে আন্দরকিল্লা মোড়ে বোমা বিস্ফোরণ ঘটালে পুরো এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সঙ্ঘাতে অভি ও লিটন নামে দুই যুবকসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। 
বড় ধরনের সংঘর্ষের আশঙ্কায় নগর ভবনের ভেতরে ও আশপাশে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। নগর ভবনের মূল ফটক আটকে সাংবাদিকদের প্রবেশে বাধা দেয়া হয়। 
জানা গেছে, নগর ছাত্রলীগের সহসম্পাদক মামুন এবং সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মহিউদ্দিনের গ্র“পের কর্মীদের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে জড়ানো দুইপ সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত। 
চসিকের একাধিক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করা শর্তে জানান, কর্ণফুলী নদীর ১৪ নম্বর ঘাটের ইজারাসংক্রান্ত টেন্ডার জমা দেয়া নিয়ে বুধবার সকাল থেকে ছাত্রলীগের দুই পরে মধ্যে উত্তেজনা চলছে। বেলা ২টায় দুই পে এক দফা হাতাহাতি হয়। এ সময় নগর ভবনের ভেতরে ভাঙচুরেরও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এরপর ঘণ্টাখানেক পরিস্থিতি থমথমে ছিল। এরপর নগর ভবনের ভেতরে সন্ধ্যা ৬টার দিকে কয়েক দফা ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ায় জড়ায় দুই প। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিলেও সন্ধ্যা ৬টার দিকে আন্দরকিল্লার মোড়ে বিবদমান ছাত্রলীগের দুই গ্র“পের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া চলে। এ সময় পরপর কয়েকটি বোমা বিস্ফোরণ হয়। একই সময় থেমে থেমে দুইপে গুলিবিনিময় হয়। এতে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত রাত সাড়ে ৭টায় নগর ভবন এলাকায় দুইপ অবস্থান নিয়ে থেমে থেমে সংঘর্ষে জড়ানোর খবর পাওয়া গেছে। 
সিটি করপোরেশনের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ড. মোস্তাফিজ সংবাদকর্মীদের বলেন, সকালে শান্তিপূর্ণভাবে টেন্ডার জমা হয়েছে। বিকেলে এসে হাতাহাতি হয়। এগুলো টেন্ডারের সাথে সম্পর্কিত নয়।
http://www.dailynayadiganta.com/detail/news/198175