১৭ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার
Choose Language:

সর্বশেষ
চলতি বিষয়াবলি
দাম কমানোর ধর্মঘটে ৫০ টাকা বেড়ে গেছে, গরু-খাসির গোশতের বাজারে নৈরাজ্য
২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, বুধবার,
গরুপ্রতি ২৫ থেকে ২৭ হাজার টাকা চাঁদাবাজির প্রতিবাদে রাজধানীজুড়ে টানা ছয় দিন ধর্মঘট পালন করে রীতিমতো তাক লাগিয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতি। এ সময় সমিতির নেতারা ঘোষণা দিয়েছিলেন, চাঁদাবাজি বন্ধ করা হলে তারা দেশবাসীকে ৩০০ টাকা কেজি দরে গরুর গোশত খাওয়াবেন। সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে বৈঠকের পর তাদের দেয়া আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে রোববার থেকে ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নেন ব্যবসায়ীরা। স্বাভাবিক কারণেই দেশবাসী আশা করছিলেন গরু-খাসির গোশতের দাম কিছুটা হলেও কমবে। কিন্তু ফল হয়েছে উল্টো। কমার পরিবর্তে উল্টো গোশতের দাম কেজিতে ৫০ টাকা বেড়ে গেছে। নৈরাজ্যকর অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বাজারজুড়ে।
গতকাল রাজধানীর কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, ধর্মঘটের পর থেকে গরু, মহিস, খাসি, বকরি নির্বিশেষে সব গোশতের দামই কেজিতে অন্তত ৫০ টাকা বেড়ে গেছে। ৫০০ টাকা থেকে ৫৩০ টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে প্রতি কেজি গরুর গোশত। মহিষের গোশত বিক্রি করা হচ্ছে ৪৫০ থেকে ৪৮০। খাসির গোশত বিক্রি করা হচ্ছে ৮০০ টাকায়। বকরির গোশত বিক্রি করা হচ্ছে ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকায়। ধর্মঘটের আগে গরুর গোশত ৪৪০ থেকে ৪৬০, খাসি ৭৪০ থেকে ৭৫০, মহিষ ৪০০ থেকে ৪৩০ এবং বকরির গোশত বিক্রি হতো ৬০০ থেকে ৬৫০ টাকা দরে। বাজারের এ বদলে যাওয়া চিত্রকে ‘হিতে বিপরীত’ বলে মন্তব্য করেন সংশ্লিষ্টরা। 
সবধরনের গোশতের দাম বেড়ে যাওয়া সম্পর্কে ব্যবসায়ীদের একটাই জবাব, ‘গরুর দাম বাড়তি’। সরকারের আশ্বাসের পর দাম না কমার কারণ হিসেবে তারা বলছেন, সরকারের কোনো আশ্বাসই এখেন বাস্তবায়িত হয়নি। খিলগাঁওর গোশত ব্যবসায়ী বাবু এ প্রসঙ্গে বলেন, আশ্বাস দিলেও আমাদের চার দফা দাবির বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এখন পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। সমস্যা সমাধান না হলে গোশতের দাম কমবে না।
বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সমাধানের আশ্বাস দিলেও এখন পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তা ছাড়া গাবতলীর গরুর হাট থেকে বাড়তি খাজনা আদায় করা হচ্ছে। তাই বাড়তি দামে কেনা গরুর গোশত বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। তিনি বলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে দাবি-দাওয়া নিয়ে গত রোববার অনুষ্ঠিত বৈঠকে বাণিজ্যমন্ত্রী উপস্থিত না থাকায় এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।
http://www.dailynayadiganta.com/detail/news/197893