১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার
Choose Language:

সর্বশেষ
চলতি বিষয়াবলি
প্রার্থীকে পুলিশ প্রহরায় রেখে নির্বাচনে অংশ না নিতে বাধ্য করার ঘটনা জানেন না সিইসি
২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, বুধবার,
গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের জাতীয় পার্টির সাবেক এমপি ডা. আব্দুল কাদের খানকে পুলিশি প্রহরায় রেখে নির্বাচনে অংশ না নিতে বাধ্য করা হচ্ছে। তার ক্লিনিক কাম বাসায় বাইরের লোকজনের যাতায়াত সীমিত করে দিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। বন্ধ করে দিয়েছে তার ক্লিনিকের কার্যক্রম। আটক করা হয়েছে তার গাড়িচালক হান্নান ও তার ব্যক্তিগত সহকারী রাশেদুল ইসলাম মেহেদীকে। বিষয়টি গণমাধ্যমগুলোতে ফলাও করে প্রকাশিত ও প্রচারিত হচ্ছে। এর পরেও গাইবান্ধা উপনির্বাচনে কোনো প্রার্থীকে পুলিশ প্রহরায় রেখে নির্বাচনে অংশ না নিতে বাধ্য করা হচ্ছে কি না সে বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে দাবি করেন সিইসি।
গতকাল সোমবার দুপুরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা সংবাদ সম্মেলেনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ দাবি করেন।
কুমিল্লা সিটি করপোরেশন ও সাবেক রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের সুনামগঞ্জ-২ (শাল্লা ও দিরাই) আসনে উপনির্বাচন আগামী ৩০ মার্চ। এই নির্বাচন দুটি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে দলগুলোর কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য কোনো বাধা এলে তা কঠোরভাবে মোকাবেলা করার হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন সিইসি।
সিইসি বলেন, নির্বাচন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হলে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা বা অনিয়ম হয় না। আমরা চাই নির্বাচন প্রতিযোগিতামূলক হোক, সবাই অংশ নিক। এতে সুষ্ঠুভাবে ভোট হবে। দলগুলোর উদ্দেশে বলবÑ আপনারা সহযোগিতা করুন। সবাই সহযোগিতা করলে সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করা সম্ভব।
এক প্রশ্নের জবাবে নুরুল হুদা বলেন, গণমাধ্যমে কোনো অভিযোগ প্রচার বা প্রকাশ হলে অথবা আমাদের কাছে কোনো অভিযোগ আসলে তা বিবেচনায় নিয়ে ব্যবস্থা নেবো। প্রার্থিতা প্রত্যাহারে কারো চাপ বা এ ধরনের অভিযোগ পেলেই তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন কারো অধীনে নয়। আমরা সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করব। কোনো বাধা এলে কঠোরভাবে তা মোকাবেলা করা হবে। আমাদের রিটার্নিং কর্মকর্তা, পর্যবেক্ষকেরা সার্বক্ষণিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। কোনো অনিয়ম হলেই ব্যবস্থা নেয়া হবে। নির্বাচন তফসিল ঘোষণার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সব ধরনের প্রচার বন্ধ করতে হবে।
ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী সুনামগঞ্জ-২ আসনে উপনির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের বা সহকারী রিটার্নি অফিসারের কাছে মনোনয়পত্র জমা দেয়ার শেষ দিন ২ মার্চ। মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের শেষ দিন ৫ মার্চ আর প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৩ মার্চ।
জাতীয় সংসদের আইন, বিচার ও সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবং সাবেক মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ৫ ফেব্রুয়ারি মৃত্যুবরণ করেন। এতে ওই আসনটি শূন্য হয়ে যায়।
সুনামগঞ্জ আসনে ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৫২ হাজার ৪৩০। আর ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১১০টি। ভোটকক্ষের সংখ্যা ৫০২টি।
অন্য দিকে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মনোনয়পত্র জমা দেয়ার শেষ দিন ২ মার্চ। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের দিন ৫ ও ৬ মার্চ আর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৪ মার্চ।
২০১১ সালের ১০ জুলাই কুমিল্লা পৌরসভা ও কুমিল্লা সদর পৌরসভা একীভূত করে ২৭টি ওয়ার্ড নিয়ে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠা হয়। কিন্তু সীমানা নিয়ে জটিলতা থাকায় নির্বাচন আটকে যায়। সর্বশেষ সেখানে নির্বাচন হয়েছিল ২০১১ সালে। দ্বিতীয়বারের মতো এবার কুমিল্লায় ভোট হচ্ছে। প্রথমবার নির্দলীয় হলেও এবার দলীয়ভাবে ভোটগ্রহণ হবে। 
এই সিটিতে ২ লাখ ৭ হাজার ৩৮৪ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এখানে সাধারণ ওয়ার্ড ২৭টি। সংরক্ষিত ওয়ার্ড ৯টি। সম্ভাব্য ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ৬৫। সম্ভাব্য ভোটকক্ষের সংখ্যা ৪২১।
http://www.dailynayadiganta.com/detail/news/197624