১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার
Choose Language:

সর্বশেষ
চলতি বিষয়াবলি
হতাশাব্যঞ্জক অগ্রগতির জন্য বিসিককে দায়ী করল শিল্প মন্ত্রণালয়, সাত মাসের এডিপি মাত্র ৬.৭৬ শতাংশ
২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, বুধবার,
উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে হতাশাব্যঞ্জক অগ্রগতির জন্য শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশনকে (বিসিক) দায়ী করেছে। চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নের অগ্রগতি মাত্র ৬ দশমিক ৭৬ শতাংশ, যা ছয় মাসে ছিল ৫ দশমিক ৬৫ শতাংশ। যেখানে আগের অর্থবছর প্রথম সাত মাসে অগ্রগতি ছিল ১০ শতাংশ। এ সংক্রান্ত পর্যালোচনা সভায় বলা হয়, বিসিকের অগ্রগতি কম হওয়ার কারণেই মন্ত্রণালয়ের অগ্রগতি কম হয়েছে, যা জাতীয় অগ্রগতি ২৭.২০ শতাংশের চেয়ে কম বলে মন্ত্রণালয়ের এডিপি পর্যালোচনায় বেরিয়ে এসেছে।
সূত্রে জানা গেছে, চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে শিল্প মন্ত্রণালয়ের এডিপিতে ৪৫টি প্রকল্পের অনুকূলে বরাদ্দ হলো এক হাজার ৩২০ কোটি ২ লাখ টাকা। যেখানে জিওবি এক হাজার ২৪৮ কোটি ২৩ লাখ টাকা এবং প্রকল্প সাহায্য হলো ৫১ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। আর গত ডিসেম্বর ’১৬ পর্যন্ত বরাদ্দ অর্থ অবমুক্ত হয়েছে ১৭৫ কোটি ২০ লাখ টাকা। মোট বরাদ্দের ১৩.২১ শতাংশ। তবে ছয় মাসে ব্যয় হয়েছে মাত্রা ৭৪ কোটি টাকা। আর সাত মাসে ব্যয় হয়েছে ১২২ কোটি ১৬ লাখ ৩৮ হাজার টাকা। 
বাস্তবতার আলোকে প্রকল্পের কর্মপরিকল্পনা ও ক্রয় পরিকল্পনা প্রণয়ন না করার কারণেই বাস্তবায়ন হার কম হয়েছে। এ ছাড়া সংস্থা প্রধানসহ সংশ্লিষ্ট প্রকল্প পরিচালকদের অদূরদর্শিতা এবং ভূমি অধিগ্রহণে জটিলতাকে চিহ্নিত করা হয়েছে পর্যালোচনা সভায়। তবে অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে জুলাই থেকে আগস্ট পর্যন্ত এই মন্ত্রণালয়ের এডিপির বাস্তবায়নে কোনো অগ্রগতি ছিল না। শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীনে বিসিকের মোট ২৪টি প্রকল্প এডিপিতে আছে। এসবের বাস্তবায়নের হার ছয় মাসে খুবই হতাশাব্যঞ্জক বা মাত্র ৫.৮৫ শতাংশ। মূলত বিসিকের অগ্রগতি কম হওয়ার কারণেই মন্ত্রণালয়ের সার্বিক অগ্রগতি জাতীয় অগ্রগতি ২৭.২০ শতাংশের চেয়ে অনেক কম।
http://www.dailynayadiganta.com/detail/news/197628