২০ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার
Choose Language:

সর্বশেষ
চলতি বিষয়াবলি
মৃত্যুর মিছিল থামছে না: ৯ দিনে প্রাণ গেল ১১৩ জনের
১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, রবিবার,
ঢাকাসহ ১১ জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় ১৭ জন নিহত হয়েছেন। গত শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে গতকাল শনিবার বিকেল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় এসব দুর্ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে সিরাজগঞ্জে ট্রাক ও বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে চারজন, পটুয়াখালী ও সুনামগঞ্জে বাসচাপা এবং মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুজন করে নিহত হন। এ নিয়ে গত ৯ দিনে দেশের বিভিন্ন জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তির সংখ্যা হয়েছে অন্তত ১১৩ জন।
গতকাল গোপালগঞ্জে বাসচাপায় স্কুলছাত্র নিহত হওয়ার ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ জনতা বাসে আগুন দিয়ে সড়কে অবরোধ করে। বগুড়াতে ট্রাক্টরচাপায় এক স্কুলছাত্রী নিহত হলে জনতা রাস্তা অবরোধ করে কয়েকটি ট্রাক্টর ভাঙচুর করে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাকচাপায় শিশু মারা গেলে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করা হয়।
বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান প্রথম আলোকে বলেন, সাম্প্রতিক বড় তিনটি দুর্ঘটনার পর তিনটি মামলা হয়েছে। এর পাশাপাশি ওই পরিবহনগুলোর মালিকদের কাছে দুর্ঘটনার ব্যাখ্যা জানতে চাওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ঢাকা ও এর আশপাশে চারটি ভ্রাম্যমাণ আদালত আছে। জেলা প্রশাসকদের চিঠি দিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত জোরদার করতে বলা হয়েছে।
প্রথম আলোর সংশ্লিষ্ট এলাকার নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:
সিরাজগঞ্জে বাস-ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষে চারজন নিহত ও অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। গতকাল বিকেল পৌনে চারটায় বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সংযোগ সড়কে কামারখন্দ উপজেলার কোনাবাড়ীতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঢাকা থেকে পাবনাগামী নাইট স্টার পরিবহন এবং বিপরীতমুখী একটি মালবাহী ট্রাকের মধ্যে সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই ওই সব ব্যক্তি নিহত হন। তাঁদের দুজন বাস ও ট্রাকের চালক। অন্যদের পরিচয় জানা যায়নি। আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ দাউদ এ ঘটনা নিশ্চিত করেন। দুর্ঘটনার জের ধরে ওই সড়কে এক ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। পৃথক দুর্ঘটনায় দুপুরে সিরাজগঞ্জ-এনায়েতপুর সড়কের আমবাড়িয়া নামক জায়গায় অটোরিকশা ও নছিমনের সংঘর্ষে অটোরিকশাযাত্রী সোনেকা খাতুন (৩৫) নিহত ও ১০ জন আহত হন। আহত ব্যক্তিদের সিরাজগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সিভিল সার্জন শেখ মো. মনজুর রহমান জানান, গতকাল এ জেলায় দুটি দুর্ঘটনায় আহত হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।
গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় বাসচাপায় এক স্কুলছাত্র মারা গেছে। ঘটনার পর জনতা বাসটিতে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং গোপালগঞ্জ-কোটালীপাড়া-পয়সারহাট সড়ক অবরোধ করে। এতে সাড়ে তিন ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। দুর্ভোগে পড়েন হাজারো যাত্রী। কোটালীপাড়া সদর উপজেলা পরিষদের সামনে গতকাল দুপুর ১২টার দিকে ওই সড়কে দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহত সিয়াম সর্দার (৭) কোটালীপাড়া কমলকুড়ি বিদ্যানিকেতনের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী ও উপজেলা সদরের উলাহাটি গ্রামের ফলবিক্রেতা জাহিদ হোসেনের ছেলে। স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে সুজন-স্বর্ণা পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস সিয়ামকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়। পুলিশ জানায়, বাসচালককে আটক করা হয়েছে। এদিকে বাসে আগুন দেওয়ার প্রতিবাদে বেলা একটায় গোপালগঞ্জ সদরের বেদগ্রামে নতুন বাসস্ট্যান্ডের সামনে ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করে জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন ও বাস মালিক সমিতি।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের বাহাদুরপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গতকাল বিকেল চারটার দিকে পাথরবোঝাই একটি ট্রাকের চাপায় তাসলিমা বেগম (১৩) নামের এক শিশু নিহত হয়। তাসলিমা হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার চাইলারামপুর গ্রামের মইজুদ্দিনের মেয়ে। এ ঘটনায় জনতা মহাসড়ক অবরোধ করলে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। তাসলিমা সড়ক পার হওয়ার সময় এ দুর্ঘটনার শিকার হয়। জনতা ট্রাকটি জব্দ করলেও চালক ও সহযোগী পালিয়েছেন। সরাইল হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে চাকার ভেতরের অংশে আটকে থাকা শিশুটিকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে।
বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার বাগবাড়ি গ্রামের কাছে ট্রাক্টরের চাপায় পিষ্ট হয়ে বৃষ্টি আক্তার (৯) নামে এক স্কুলছাত্রী নিহত হয়েছে। সে গ্রামের আবদুর রাজ্জাকের মেয়ে ও বাগবাড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী ছিল। গতকাল বেলা তিনটায় সান্তাহার-জয়পুরহাট সড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। বৃষ্টি আক্তার স্কুল থেকে ফেরার পথে রাস্তা পার হওয়ার সময় ট্রাক্টরটি চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়। তার মৃত্যুর খবর স্কুল ও গ্রামে ছড়িয়ে পড়লে উত্তেজিত জনতা রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে পাঁচ-সাতটি ট্রাক্টর ভাঙচুর করে। পরে সংশ্লিষ্ট ট্রাক্টরচালক গোলাম মোস্তফাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে তারা।
পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার নওমালা ইউনিয়নের আশুরির হাট এলাকায় শুক্রবার রাত ১১টার দিকে বাসচাপায় টমটমচালকসহ দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন বাসের ১০ যাত্রী। পুলিশ বাসটি জব্দ করেছে। নিহত ব্যক্তিরা হলেন টমটমচালক মো. রিপন তালুকদার (৪০) ও আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের আদাবাড়িয়া গ্রামের কাদের হাওলাদারের ছেলে মো. জব্বার হাওলাদার (৬০)।
শেরপুরের নকলায় ট্রাকের ধাক্কায় মো. ওমর ফারুক (৪৫) নামের এক পোশাক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। তিনি নকলা বাজারের রাঈদা ফ্যাশনের মালিক ছিলেন। শুক্রবার রাতে নকলা-নালিতাবাড়ী সড়কের ফেরুষা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। তিনি তাঁর নবজাতক শিশুকে দেখতে মোটরসাইকেলে ধনাকুশা গ্রামে শ্বশুরবাড়ি যাচ্ছিলেন। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। পুলিশ ট্রাকটি জব্দ করলেও চালক পালিয়েছেন।
সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার বাঘমারা এলাকায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় দুই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বেলা আড়াইটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তিরা হলেন সুনামগঞ্জ সদরের আস্তুমা গ্রামের বোরহান উদ্দিন (২৪) ও আলমপুর গ্রামের বদরুল আলম (৩০)। বোরহান ভাড়ায়চালিত একটি মোটরসাইকেলে তাহিরপুর উপজেলায় যাওয়ার পথে মোটরসাইকেলটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খায়। ঘটনাস্থলেই বোরহান ছাড়াও চালক বদরুল মারা যান।
ঢাকার সাভারে গতকাল বেলা তিনটার দিকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ব্যাংক টাউন এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় আরশাদ আলী নামের এক বৃদ্ধ মারা গেছেন। আহত হয়েছেন তিনজন। আরশাদ আলীর বাড়ি সাভারের রাজফুলবাড়িয়া এলাকায়। মানিকগঞ্জ থেকে প্রাইভেট কারযোগে রাজফুলবাড়িয়া যাওয়ার পথে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সেটি সড়ক বিভাজকের ওপর তুলে দেন। হতাহত ব্যক্তিরা সবাই এর আরোহী ছিলেন।
নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ট্রাক খাদে পড়ে রনি (৩০) নামের এক ঝালাইশ্রমিক নিহত ও আরও পাঁচ শ্রমিক আহত হয়েছেন। বিকেল চারটার দিকে উপজেলার মদনপুর-ভুলতা-জয়দেবপুর (ঢাকা বাইপাস) সড়কের নলপাথর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। হতাহত ব্যক্তিরা ট্রাকের ওপর চড়ে যাচ্ছিলেন। নিহত রনি ঢাকার নবাবগঞ্জ এলাকার দুখাই মণ্ডলের ছেলে।
সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় মাইক্রোবাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে গেলে অজ্ঞাতনামা (১৮) এক তরুণ নিহত হন। গতকাল ভোরে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের অতিরবাড়ী এলাকায় এ দুর্ঘটনার সময় গাড়িটিতে আগুন ধরে যায়। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে গাড়ি থেকে ওই তরুণের মৃতদেহ উদ্ধার করেন। চালক পলাতক রয়েছেন।
রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার গরিয়ানা নামক এলাকায় শুক্রবার রাতে দ্রুতগামী ট্রাকের সঙ্গে এক মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেলের চালক মো. সালাহ উদ্দিন (৩৩) নিহত হন। তিনি রাজবাড়ী সদর উপজেলার কামালপুর মির্জা বাড়ির মো. শফিউদ্দিনের ছেলে।
বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) সচিব মোহাম্মদ শওকত আলী প্রথম আলোকে বলেন, গত কয়েক দিনের দুর্ঘটনাগুলো পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানো এবং পাল্লা দিয়ে পাশ কাটাতে (ওভারটেকিং) গিয়ে বেশির ভাগ দুর্ঘটনা ঘটেছে।
সড়ক দুর্ঘটনার সংখ্যা বৃদ্ধি সম্পর্কে জানতে চাইলে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, উৎসবের সময় ও বর্ষাকালে সড়ক দুর্ঘটনা বেশি হয়। প্রতিবছর এই সময়ে আবহাওয়া ভালো থাকায় মানুষের যাতায়াত বাড়ে। ফলে ছোট-বড় সব ধরনের গাড়ির চলাচল বেড়ে যায়। যাত্রী বাড়ায় গাড়িগুলো বেশি ট্রিপ দিতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়। আর বেপরোয়া গাড়ি চালানোর বিষয়টি তো আছেই, যা সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ।
http://www.prothom-alo.com/bangladesh/article/1084251/%E0%A7%AF-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%A8%E0%A7%87-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A3-%E0%A6%97%E0%A7%87%E0%A6%B2-%E0%A7%A7%E0%A7%A7%E0%A7%A9-%E0%A6%9C%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%B0