২০ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার
Choose Language:

সর্বশেষ
চলতি বিষয়াবলি
বেড়েছে মূল্যস্ফীতি
৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, বুধবার,
মূল্যস্ফীতির হার আবারো বেড়েছে। ২০১৬ সালে কমে যাওয়ার প্রবণতা থাকলেও নতুন বছরের শুরুতেই আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে এই হার বৃদ্ধি। বছরের প্রথম মাস জানুয়ারিতে পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে এ মূল্যস্ফীতির সাধারণ হার ছিল ৫ দশমিক ১৫ শতাংশ, যা গত ডিসেম্বর মাসে ছিল ৫ দশমিক ০৩ শতাংশ। জানুয়ারিতে মোটা চালের দাম কিছুটা বৃদ্ধি এবং বছরের শুরুতে ছাত্রছাত্রীদের ভর্তিসহ বাড়তি ব্যয়ের কারণে মূল্যস্ফীতি কিছুটা বেড়েছে বলে পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানান। 
শেরেবাংলা নগরের এসইসি-২ সম্মেলন কক্ষে এক ব্রিফিংএ মন্ত্রী এ তথ্যসহ গত সাত মাসে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নের হারও প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, সাধারণত জানুয়ারি ও জুন মাসে আমাদের দেশে মূল্যস্ফীতি বেড়ে যায়। এটা স্বাভাবিক ব্যাপার। উল্লেøখ্য চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেটে গড় মূল্যস্ফীতির হার ৫ দশমিক ৮ শতাংশে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা ধরেছে সরকার।
মন্ত্রী জানান, জানুয়ারিতে খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ৫৩ শতাংশে, যা ডিসেম্বরে ছিল ৫ দশমিক ৩৮ শতাংশ। খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে ৩ দশমিক ১০ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ।
গ্রামে সার্বিক মূল্যস্ফীতির হার পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ দশমিক ৯২ শতাংশে। এটা ডিসেম্বরে ছিল ৪ দশমিক ৪৬ শতাংশ। খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ দশমিক ২৮ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৪ দশমিক ৭৮ শতাংশ। তবে খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে ২ দশমিক ৫২ শতাংশে, যা তার আগের মাসে ছিল ৩ দশমিক ৮৮ শতাংশ।
আর শহরে সার্বিক মূল্যস্ফীতি পয়েন্ট টু পয়েন্ট ভিত্তিতে জানুয়ারিতে কমে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৫৭ শতাংশে, যা আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। তবে খাদ্যপণ্যের মূল্যস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ১১ শতাংশে, যা আগের মাসে ছিল ৬ দশমিক ৭৪ শতাংশ। খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের মূল্যস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে ৩ দশমিক ৯১ শতাংশে, যা আগের মাসে ছিল ৫ দশমিক ৩৫ শতাংশ।
এডিপি বাস্তবায়ন হার : মন্ত্রী চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছরের প্রথম সাত মাসের (জুলাই-জানুযারি) এডিপি বাস্তবায়নের চিত্র তুলে ধরে জানান, সাত মাসে ৩৯ হাজার ৯৭৩ কোটি টাকা এডিপি বাস্তবায়নে ব্যয় হয়েছে। বাস্তবায়নের এ হার শতকরা ৩২ দশমিক ৪২ ভাগ। গত বছর একই সময়ে এ হার ছিল শতকরা ২৮ ভাগ এবং বাস্তবায়ন ব্যয় ছিল ২৮ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে একই সময়ে এ বাস্তবায়ন হার ছিল ৩২ শতাংশ এবং ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ছিল ৩১ শতাংশ।
http://www.dailynayadiganta.com/detail/news/194115