২০ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার
Choose Language:

সর্বশেষ
চলতি বিষয়াবলি
ছাত্রদের শরীর দিয়ে তৈরি পদ্মা সেতুতে হাটলেন আ’লীগ নেতা
২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, বৃহস্পতিবার,
নেতা হাসছেন। আর হাঁটছেন। পথ তার নিষ্পাপ শিশুর পিঠ। এ নেতা চাঁদপুরের এক আওয়ামী  লীগ নেতা। উপজেলা চেয়ারম্যান। তাকে নামানোর জন্য আরেক কোমলমতি শিক্ষার্থী পিঠ বাঁকা করে আছে। সেখানে পা দিয়ে নামবেন নেতা । এশটি ক্রীড়া অনুষ্ঠানে ছাত্রদের শরীর দিয়ে তৈরি পদ্মা সেতুর উপর হেঁটে সেতু পার হয়ে সমালোচনায় পড়েছেন প্রধান অতিথি উপজেলা আওয়ামী  লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলা চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটোয়ারী। তিনি একই উপজেলার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। গত সোমবার তিনি চাঁদপুরের হাইমচরের নীলকমল ওছমানীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠানে ছাত্রদের পিঠ দিয়ে তৈরি সেতুর উপর হাটার এই দায়িত্বজ্ঞানহীন কান্ড ঘটান। ছাত্রদের শরীর দিয়ে তৈরি পদ্মা সেতুর উপর হাটার এই ছবি ফেসবুকে পোস্ট করার পর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে ব্যবহারকারীদের কাছে। এতে এলাকার সর্বস্তরে নিন্দার ঝড় বইছে।
হাইমচরের নীলকমল ওছমানীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মোশারফ হোসেন জানান, প্রতি বছর আমাদের বিদ্যালয়ের ছাত্ররা বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির উদ্দেশ্যে ডিসপ্লে দেখায়। এবার আমাদের ছেলেরা পদ্মা সেতু তৈরি করে প্রধান অতিথিকে তা পার হতে অনুরোধ করে। প্রধান অতিথি হাইমচর উপজেলা চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটোয়ারী ছাত্রদের অনুরোধে সেতু পার হন। খুশি হয়ে ছাত্রদের ৫ হাজার টাকা দেন তিনি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. হুমায়ুন পাটওয়ারী, উপজেলা আওয়ামী  লীগের সহ-সভাপতি মো. কাউসার মিয়াজি, এম এ বাশার, জাতীয় পার্টির সভাপতি মো. জয়দল হোসেন মাস্টার প্রমুখ।
দুই সারিতে দাঁড়িয়ে হাতের ওপর একজন শিক্ষার্থীর শরীর বিছিয়ে দেয়া হয়েছে। তার উপর দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি চাঁদপুরের হাইমচর উপজেলা চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটওয়ারী। অবশ্য তিনি যে দিক দিয়ে নামবেন তার সামনেই অপর এক শিক্ষার্থী হাঁটু এবং হাতের উপর শরীর ভাসিয়ে রেখেছে যেন তিনি সাবলীলভাবে নামতে পারেন। আর এতে করে অবশ্য প্রধান অতিথি হাস্যোজ্জ্বল মুখে সফলভাবেই শিশু মানবসেতু হেঁটে পার হন।
চাঁদপুর শহরের পুরান বাজার ডিগ্রি কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রধান হাবিবুর রহমান পাটওয়ারী ছবিটি মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় আপলোড করে লিখেছেন, ‘ইনি একজন জনপ্রতিনিধি। দেখুন তার কা-। সমাজ কি এতোটা বিপদগ্রস্থ হয়ে পড়েছে। কেউ কি নেই এদের থেকে সমাজটাকে নিস্তার  দিতে। শিশু শ্রম যেখানে নিষিদ্ধ, সেখানে একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে তিনি অপ্রাপ্ত বয়সী শিশুদের পিঠে চড়ে হেটে চলছেন। দেখাচ্ছেন সার্কাস। কি হবে এইসব জনপ্রতিনিধিদের দিয়ে। 
শিক্ষার্থী সোহরাব হোসেন জানায়, এ বিদ্যালয়টি উপজেলার প্যারেড বা শারিরীক কসরত প্রদর্শনে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছে। আর প্রতিবছরই আমরা এমন মানবসেতু তৈরি করি। তারই অংশ হিসেবে গত ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথিকে আমরা মানবসেতু পার হতে আমন্ত্রণ জানাই। তিনি মানবসেতু অতিক্রম করে আমাদের পাঁচ হাজার টাকা পুরস্কার দেন।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোশারফ হোসেন জানান, আসলে তিনি পড়ে যাবেন বলে মানবসেতুতে উঠতে চাচ্ছিলেন না। আমরা অনেক অনুরোধ করার পর তিনি উঠেছেন। বিষয়টি আমরা শুধু মাত্র শারীরিক কসরত হিসেবে বিবেচনা করেছি। কিন্তু অন্যভাবে কখনো ভাবিনি।
স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ শিক্ষক কাজী আনিস লিখেছেন, শিক্ষার্থীদের পিঠকে বানানো হয়েছে পদ্মা সেতু। আর সেই সেতুতে হাঁটছেন নেতা। ভাবছি, কতটা বিকৃত, নোংরা, অসভ্য আর হিংস্র মস্তিস্ক হলে এমন আইডিয়া বের হয়ে আসে। কতটা আহাম্মক হতে পারে ওই স্কুলের শিক্ষক- কর্মকর্তারা।
http://www.dailysangram.com/post/270131-%E0%A6%9B%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B6%E0%A6%B0%E0%A7%80%E0%A6%B0-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%A4%E0%A7%88%E0%A6%B0%E0%A6%BF-%E0%A6%AA%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%AE%E0%A6%BE-%E0%A6%B8%E0%A7%87%E0%A6%A4%E0%A7%81%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%B9%E0%A6%BE%E0%A6%9F%E0%A6%B2%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%86%E0%A6%B2%E0%A7%80%E0%A6%97-%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%A4%E0%A6%BE