১৪ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার
Choose Language:

সর্বশেষ
চলতি বিষয়াবলি
সতর্ক মুদ্রানীতি ঘোষণা: বিনিয়োগে দিকনির্দেশনা নেই
৩০ জানুয়ারি ২০১৭, সোমবার,
বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধি ১৬ দশমিক ৫ শতাংশ অপরিবর্তিত রেখে বিনিয়োগবান্ধব সতর্ক মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ সময় গভর্নর ফজলে কবির বলেন, ‘আমরা অর্থবর্ষের প্রথমার্ধের উৎপাদন সহায়ক, সতর্ক নীতির ভঙ্গিটি অপরিবর্তিত রেখেছি। ঘোষিত মুদ্রানীতি অনুযায়ী ব্যাংকিং খাত থেকে সরকারের ঋণ গ্রহণ কমেছে। যা বেসরকারি খাতের জন্য সুখবর। এতে বিনিয়োগ বাড়বে।’ কিন্তু বেসরকারি খাতে কীভাবে বিনিয়োগ বাড়বে, তার সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা নতুন মুদ্রানীতিতে নেই। ব্যাংক ঋণের উচ্চসুদ কমানোর বিষয়েও কিছু বলা হয়নি। তবে সঞ্চয়পত্রের উচ্চসুদের কারণে দেশের বন্ড বাজারের বিকাশ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে ঘোষণাপত্রে উল্লেখ করা হয়।
পাশাপাশি পুঁজিবাজারের সাম্প্রতিক উল্লম্ফন নিয়ে সতর্কবাণী এসেছে নতুন মুদ্রানীতিতে। এ প্রসঙ্গে গভর্নর বলেন, ‘মূলধন বাজারে ২০১০ সাল থেকে বিদ্যমান মন্দা প্রবণতা থেকে বেরিয়ে আসার প্রক্রিয়াটি যাতে কর্তৃপক্ষের সুদৃঢ় নিয়ন্ত্রণে ও সুস্থ ধারায় থাকে সে বিষয়ে কার্যকর নজরদারি জরুরি। তা না হলে অতীতের মতো এবারও বিনিয়োগকারীদের গুরুতর ক্ষতির আশংকা থাকবে।’
রোববার বাংলাদেশ ব্যাংকের কনফারেন্স হলে চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছরের দ্বিতীয়ার্ধের জন্য (জানুয়ারি-জুন) মুদ্রানীতি ঘোষণা করেন গভর্নর ফজলে কবির। এ সময় তিনি বলেন, ‘সাম্প্রতিককালে সরকারের ঘাটতি অর্থায়নে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে ঋণ কমায় ব্যক্তি খাতে ঋণ জোগানোর পথ সুগম করেছে। তবে সঞ্চয়পত্রে সরকারের ঋণ বাড়ায় দেশে বন্ড বাজারের বিকাশের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে।’
সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরী, এসএম মনিরুজ্জামান, চেঞ্জ ম্যানেজমেন্ট অ্যাডভাইজার মো. আল্লাহ মালিক কাজেমী, সিনিয়র ইকোনমিক অ্যাডভাইজার ড. ফয়সল আহমেদ, অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. মো. আখতারুজ্জামান, নির্বাহী পরিচালক আহমেদ জামাল, শুভংকর সাহা, মাসুম কামাল ভূঁইয়া, আবদুর রহিম ও হুমায়ূন কবির এবং বিভিন্ন মহাব্যবস্থাপকসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
ঘোষিত মুদ্রানীতিতে জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত সময়ে বেসরকারি খাতে মুদ্রার জোগান আগের মতোই সাড়ে ১৬ শতাংশে রাখা হয়েছে। এ ছাড়া অভ্যন্তরীণ ঋণের প্রবৃদ্ধি অপরিবর্তিত রেখে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৬ দশমিক ৪ শতাংশ। মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি লক্ষ্যমাত্রা ৭ দশমিক ২ শতাংশ অর্জনের ব্যাপারে দৃঢ় সংকল্প ব্যক্ত করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে গভর্নর বলেন, বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত দেখে মনে হয়েছে, বাংলাদেশের অর্থনীতি কাক্সিক্ষত ৭ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধির পথেই রয়েছে।
উল্লেখ্য, চলতি অর্থবছরের প্রথমার্ধের মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতের ঋণের লক্ষ্যমাত্রা ১৬ দশমিক ৬ শতাংশ এবং দ্বিতীয়ার্ধের জন্য সাড়ে ১৬ শতাংশ ধরা হয়েছিল। চলতি অর্থবছরের বাজেটে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার ৭ দশমিক ২ শতাংশ ধরা হয়েছে।
গেল বছরের ২০ মার্চ দায়িত্ব নেয়ার পর গভর্নর ফজলে কবির দ্বিতীয়বারের মতো মুদ্রানীতি ঘোষণা করলেন রোববার। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। রেমিটেন্সপ্রবাহ রোধে নানা উদ্যোগের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ বিষয়ে একটি বিশেষজ্ঞ টিম গঠন করা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে বিভিন্ন রাষ্ট্রের দূতাবাসের সঙ্গে আলাপ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে একটি রাষ্ট্রে বিকাশের নাম ব্যবহার করে হুন্ডি করা ২৫টি প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এর বাইরেও কোনো কারণ থাকলে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান তিনি। মানি লন্ডারিংয়ের ব্যাপারে গভর্নর বলেন, বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইনটেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) বিদেশে অর্থ পাচারের বিষয়ে কাজ করে যাচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে নগদ ডলারের ঘাটতি সৃষ্টি হলে তাৎক্ষণিকভাবে ডলার আমদানির মাধ্যমে তা সমাধান করা হয়েছে। রিজার্ভ হ্যাকিংয়ের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘রিজার্ভ রিকভারি আইনের প্রক্রিয়ায় আছি। ২৯ মিলিয়ন ডলারের একটি মামলার রায় বাংলাদেশের পক্ষে এসেছে। কিন্তু হঠাৎ করে এক আপিলের মাধ্যমে তা আবার স্থগিত করা হয়। এ ছাড়া মার্চের পর সুইফট নতুন রূপে আসবে। তাদের সঙ্গে নতুনভাবে চুক্তি করা হয়েছে।’
রিজার্ভ প্রসঙ্গে ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরী বলেন, ‘রিজার্ভ হ্যাকিং শুধু বাংলাদেশে নয়, সারা দুনিয়াতে হয়। আমরা হ্যাকারদের বিষয়ে যথেষ্ট সতর্ক রয়েছি। এ ছাড়া এটিএম বুথে জালিয়াতি রোধে প্রায় সব ব্যাংকে ডিভাইস স্কিম বসানো হয়েছে।’ ব্যাংকিং খাতে অনিয়মের বিষয়ে তিনি বলেন, অনিয়মের ব্যাপারে বাংলাদেশ ব্যাংক কঠোর অবস্থানে আছে। ইতিমধ্যে অনেক এমডি-ডিএমডির চাকরি চলে গেছে। বহু ব্যাংকারের জেল-জরিমানা হয়েছে। অনেক ব্যাংকে পর্যবেক্ষক দেয়া হয়েছে। বিশেষ করে সাম্প্রতিক সময়ে এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকে অনিয়ম রোধে পর্যবেক্ষক দেয়া হয়েছে। পরিচালকদের বিষয়ে তিনি বলেন, কেউ নিয়মের বাইরে ব্যাংকের মালিক বা পরিচালক হতে পারছেন না। সবাইকে নিয়ম মেনেই পরিচালক হতে হয়। এ ছাড়া বিদেশে ৭৪ হাজার কোটি টাকা অর্থ পাচারের ভিত্তি নেই বলে মনে করেন এসকে সুর চৌধুরী। তার মতে, কিছু অর্থ পাচার হয়ে থাকতে পারে। বিদেশে অনেকে ব্যবসা করেন। তবে তা অর্থ পাচারের আওতায় আসবে না।
হলমার্ক নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ডেপুটি গভর্নর এসএম মনিরুজ্জামান বলেন, সোনালী ব্যাংকের হলমার্ক কেলেংকারির অনেক অর্থ ঋণ হিসাবে যায়নি। সেখানে ছিল পুরোটাই অনিয়ম। এ বিষয়ে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে কিছু ক্ষেত্রে হুন্ডি ও কিছু ক্ষেত্রে মানি লন্ডারিং হচ্ছে। সে কারণে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের দৈনিক লেনদেনের সীমা কমানো হয়েছে।
বাজেট বাস্তবায়নে সরকারের ঘোষিত আর্থিক নীতিকে সঠিক পথে পরিচালিত করতে প্রতি অর্থবছরে দুটি মুদ্রানীতি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। জুলাই-ডিসেম্বর মেয়াদের মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হয়েছিল গত বছরের ২৬ জুলাই। বরাবরের মতো এবারও নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণার আগে অর্থনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, ব্যাংকার ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করে বাংলাদেশ ব্যাংক।
ঘোষিত মুদ্রানীতির বিষয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ যুগান্তরকে বলেন, ঘোষিত মুদ্রানীতি গতানুগতিক। এখানে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানের কথা বলা হয়েছে। কিন্তু কোন খাতে কীভাবে বিনিয়োগ বা কর্মসংস্থান হবে তার সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা নেই। বিশেষ করে নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য ভালো কিছু নেই।
বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন যুগান্তরকে বলেন, মুদ্রানীতি সময়োপযোগী ও বিনিয়োগবান্ধব। তবে নতুনত্ব বা বিনিয়োগের সুনির্দিষ্ট দিকনির্দেশনা নেই। তিনি বলেন, কোয়ান্টিটি নয়, প্রশ্ন রয়েছে কোয়ালিটি নিয়ে। এ ছাড়া সরকারের মেগা প্রকল্পে রিজার্ভ খাটানো বিষয়ে কোনো দিকনির্দেশনা নেই।
পূবালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল হালিম চৌধুরী যুগান্তরকে বলেন, ঘোষিত মুদ্রানীতি বিনিয়োগবান্ধব হয়েছে। সরকারি খাতে ১৬ দশমিক ৪ শতাংশ ও বেসরকারি খাতের প্রবৃদ্ধি ১৬ দশমিক ৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। এটাই ব্যাংকারদের প্রত্যাশা ছিল।
http://www.jugantor.com/first-page/2017/01/30/97374/%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A7%8B%E0%A6%97%E0%A7%87--%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B6%E0%A6%A8%E0%A6%BE-%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%87