১৭ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার
Choose Language:

সর্বশেষ
চলতি বিষয়াবলি
রাষ্ট্রপতি সার্চ কমিটির নামে ফার্স কমিটি গঠন করেছেন- দুদু
২৮ জানুয়ারি ২০১৭, শনিবার,
রাষ্ট্রপতির গঠন করা সার্চ কমিটি নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বিএনপির ভাইস  চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, রাষ্ট্রপতির সার্চ কমিটি গঠনের উদ্যোগে জাতি আশাবাদী হয়েছিল। কিন্তু বুধবার ঘোষিত সার্চ কমিটির মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয়েছে, সরকার আবারও ৫ জানুয়ারি মার্কা নির্বাচন করতে চায়। সার্চ কমিটি গঠনের নামে ফার্স কমিটি (প্রহসনের কমিটি) করা হয়েছে। এই কমিটি ভালো কিছু দিতে পারবে না।
 
গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরামের উদ্যোগে বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শরীফুল আলমের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
 
সার্চ কমিটি প্রসঙ্গে শামসুজ্জামান দুদু বলেন, এই কমিটির কাছ থেকে আমরা ভালো কিছু আশা করতে পারি না। এই কমিটি নিয়ে বিএনপি হতাশ ও ক্ষুব্ধ। তিনি  বলেন, বিএনপি আবার রাজপথে তখনই নামবে, যখন দেখবে আলোচনার আর কোনও সুযোগ নেই।
 
তিনি বলেন, সার্চ কমিটি গঠনের পর সরকারের পরবর্তী পদক্ষেপ কী হবে তা দেখে দলীয় ফোরাম ও জোটের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে পরর্বর্তী সিদ্ধান্ত নিবে বিএনপি। সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে আমরা একটা সিদ্ধান্তে যাবো। তবে ভোরের সূর্য দেখে বোঝা যায় সারাদিন কেমন যাবে।
 
ছাত্র দলের সাবেক এই সভাপতি বলেন, মহামান্য রাষ্ট্রপতির কার্যালয় থেকে যে সিদ্ধান্ত এসেছে আমরা মনে করি তা মহামান্য রাষ্ট্রপতির নয়, প্রধানমন্ত্রীর পরার্মশক্রমেই এই কমিটি করা হয়েছে। কারণ প্রধানমন্ত্রীর বাইরে রাষ্ট্রপতির কার্যালয় নয়। এটা সাংবিধানিকভাবেই স্বীকৃত। তবে প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতিকে ব্যবহার করে এই সুযোগটা কাজে লাগাতে পারতেন।
 
বিএনপির এই নেতা বলেন, যাদেরকে এখানে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে তাদের অধিকাংশই সরকারের লাভজনক পদে এখনো বিদ্যমান। গত কমিটিতে যারা ছিলেন তাদের পরার্মশে যে নিবার্চন কমিশন গঠন করা হয়েছে সেই কমিশন বাংলাদেশে একটা কালো অধ্যয়ের সূচনা করেছে। তাদের গঠিত নিবার্চন কমিশন ঘৃণ্য একটা নিবার্চনের দায়িত্ব পালন করেছে। সেই ব্যক্তিদের সামনে এনে কমিটি করা হয় সেটা কি ফল দেবে তা তো এখনই বোঝা যায়।
 
দলটির ভাইস চেয়াম্যান মনে করেন, সরকার মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে ব্যবহার করে সরকার ও বিরোধী দলের মধ্যে যে  দূরত্ব তৈরি হয়েছে তা থেকে উত্তরণের একটা সুযোগ নিতে পারত। দেশে নির্বাচন নিয়ে যে সংকট তৈরি হয়েছে এই সংকট উত্তরণ ঘটিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া যেত। কিন্তু তারা সেটা না করে বরং নির্বাচন প্রশ্নে যে সংকট চলছে তাকে আরো দীর্ঘস্থায়ী করার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। সামনে সেটা কি ফল দেবে এখনই সেটা বলা যাবে না।
 
দুদু বলেন, এই ঘটনার মধ্য দিয়ে বোঝা যাচ্ছে আবারো দেশে দলীয় প্রভাবযুক্ত একটা নির্বাচন কমিশন গঠন এবং ৫ জানুয়ারির মত একটা দখলি নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। অর্থ্যাৎ দেশকে একটা অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দেয়া হলো।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশে দুদু আরও বলেন, ৫ জানুয়ারি মার্কা আরেকটি নির্বাচনের স্বপ্ন দেখবেন না। তাহলে সেই স্বপ্ন দুঃস্বপ্নে পরিণত। কারণ এই দেশ আন্দোলন-সংগ্রামের দেশ।
 
আয়োজক সংগঠনের সভাপতি সাইদুর রহমানেরর সভাপতিত্বে এবং শাহবাগ থানা কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমতউল্লাহ, খালেদা ইয়াসমিন, বীর উত্তম শহীদ জিয়া শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদের সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান মনির প্রমুখ।
https://goo.gl/FKpFcU