২০ অক্টোবর ২০১৯, রবিবার
Choose Language:

সর্বশেষ
ট্রাইবুনাল
মীর কাসেম আলীর রিভিউ আবেদনের শুনানি ২৪ আগস্ট
২৬ জুলাই ২০১৬, মঙ্গলবার,
জামায়াতে ইসলামীর নির্বাহী পরিষদ সদস্য মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড থেকে খালাস চেয়ে জমা দেয়া আপিলের রায় পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) আবেদনের শুনানি আগামী ২৪ আগস্ট নির্ধারণ করা হয়েছে। গতকাল প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। বেঞ্চের অন্য বিচারপতিরা হলেন বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি মোহাম্মদ বজলুর রহমান।
মীর কাসেম আলীর প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন দুই মাসের সময় প্রার্থনা করলে আদালত তা আংশিক মঞ্জুর করে ২৪ আগস্ট শুনানির দিন ধার্য করেন। অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সময়ের আবেদনের বিরোধিতা করেন।
শুনানিতে খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, আমরা প্রস্তুতি নিতে পারিনি, সময় চাই। রাস্তাঘাটে যা দেখি তাতে বুক কাঁপে। আমাদের প্রস্তুতি নিতে সময় লাগবে।
এ সময় অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, অনেক লম্বা সময় দেয়া হয়েছে। চেম্বার জজ সময় দিয়েছেন, আর সময় দেয়া যাবে না।
এরপর প্রধান বিচারপতি সময় আবেদন মঞ্জুর করে বলেন, শেষবারের মতো সময় দেয়া হলো, পূর্ণ প্রস্তুত হবেন। আর সময় চাইবেন না।
আদালতের আদেশের পর এক ব্রিফিংয়ে খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, আমরা সময় চেয়েছি, মামলার শুনানির জন্য তৈরি হতে পারিনি। মামলা শুনানির জন্য মানসিক প্রস্তুতি লাগে এ জন্য সময় চেয়েছি। যেহেতু এটা একটা মৃত্যুদণ্ডের মামলা। অ্যাটর্নি জেনারেলের আপত্তি সত্ত্বেও আদালত ২৪ আগস্ট পর্যন্ত আমাদের সময় দেন।
এর আগে গত ২১ জুন চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মীর কাসেম আলীর রিভিউ শুনানির তারিখ ২৫ জুলাই ধার্য করেন।
গত ১৯ জুন মীর কাসেম আলী মৃত্যুদণ্ড থেকে খালাস চেয়ে রিভিউ আবেদন দায়ের করেন। ৮৬ পৃষ্ঠার আবেদনে ১৪টি যুক্তি দেখিয়ে মৃত্যুদণ্ড থেকে মীর কাসেম আলীর খালাস চাওয়া হয়।
রিভিউ আবেদন দায়ের করার পর মীর কাসেম আলীর প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন এক ব্রিফিংয়ে বলেছিলেন, ত্রুটিপূর্ণ অভিযোগে মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। আপিল বিভাগ নিজেরাই স্বীকার করছেন, অভিযোগ ক্রটিপূর্ণ, তার পরও সেই অভিযোগে তারা মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখেছেন। এটা ন্যায়বিচারের পরিপন্থী এবং আমরা মনে করি, জসিমের মৃত্যুর ব্যাপারে যে অভিযোগ আনা (১১ নম্বর অভিযোগ) হয়েছে, সে ব্যাপারে আপিল বিভাগে রিভিউর পর আমরা খালাস পাবো।
গত ৬ জুন মীর কাসেম আলীর আপিলের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হয়। গত ৮ মার্চ মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে তার আপিল আবেদনের সংক্ষিপ্ত রায় ঘোষণা করেন আপিল বিভাগ। ২০১৪ সালের ২ নভেম্বর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় মীর কাসেম আলীকে মৃত্যুদণ্ড দেন। রাষ্ট্রপক্ষের দায়ের করা মোট ১৪টি অভিযোগের মধ্যে দু’টিতে মৃত্যুদণ্ডসহ মোট ১০টি অভিযোগে তাকে সাজা দেয়া হয়। অপর চারটি অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দেয়া হয়। এ রায়ের বিরুদ্ধে ওই বছরের ৩০ নভেম্বর খালাস চেয়ে মীর কাসেম আলী আপিল করেন। আপিল বিভাগের রায়ে ট্রাইব্যুনালের দেয়া মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখা হয়। - See more at: http://www.dailynayadiganta.com/detail/news/139099#sthash.92buk8qb.dpuf