২৩ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার
Choose Language:

সর্বশেষ
ট্রাইবুনাল
ব্যারিস্টার আরমানকে খুঁজে পেতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা
১০ সেপ্টেম্বর ২০১৬, শনিবার,
বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সাবেক কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য শহীদ মীর কাসেম আলীর পুত্র ব্যারিস্টার মীর আহমাদ বিন কাসেম আরমানকে অবিলম্বে তার পরিবারের নিকট ফিরিয়ে দেয়ার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে শহীদ মীর কাসেম আলীর স্ত্রী ও ব্যারিস্টার আরমানের মাতা খন্দকার আয়েশা খাতুন আজ ১০ সেপ্টেম্বর প্রদত্ত এক বিবৃতিতে বলেন, “ব্যারিস্টার মীর আহমাদ বিন কাসেম আরমানের জন্য আমরা পরিবারের সকলেই গভীর উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে অতি কষ্টে দিনযাপন করছি।
 
গত ৯ আগস্ট দিবাগত গভীর রাতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয় দিয়ে সাদা পোশাকধারী এক দল লোক আমার স্নেহের পুত্র ব্যারিস্টার আরমানকে বাসা থেকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। তাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার এক মাসের অধিক সময় অতিবাহিত হলেও সে কোথায় কি অবস্থায় আছে তা আমরা জানি না। দেখতে দেখতে ১৩ সেপ্টেম্বর পবিত্র ঈদুল আযহা সমাগত। এ অবস্থায় আমরা অত্যন্ত ব্যাকুল হৃদয়ে ব্যারিস্টার আরমানের বাসায় ফেরার অপেক্ষায় আছি।
 
আমার স্বামী শহীদ মীর কাসেম আলী তাঁর পুত্র ব্যারিস্টার আরমানের সাথে শেষ সাক্ষাৎ পর্যন্ত করতে পারেননি। শহীদ মীর কাসেম আলীর শেষ ইচ্ছা ছিল তার অতি স্নেহের পুত্র ব্যারিষ্টার আরমান তার নামাজে জানাজায় ইমামতি করবেন। তার সে ইচ্ছাও পূরণ করা হয়নি। 
 
ব্যারিস্টার আরমান দেশের একজন আইনানুগত নাগরিক ও দেশের সর্বোচ্চ আদালতের আইনজীবী। তাকে কারা অপহরণ করে গুম করে রেখেছে তা তদন্ত করে দেখা এবং তাকে পরিবারের কাছে ফেরত দেয়া নতুবা আইনের হাতে সোপর্দ করা রাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দায়িত্ব। কিন্তু তারা সে দায়িত্ব পালন না করে নাগরিক অধিকারকে ভুলুণ্ঠিত করেছেন। এ অবস্থায় আমরা অত্যন্ত ব্যাকুল হৃদয়ে দেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি আকর্ষণ করে ব্যারিষ্টার আরমানকে পরিবারে কাছে ফিরিয়ে দেয়ার ব্যাপারে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছি।
 
একদিকে আমার স্বামী শহীদ মীর কাসেম আলীর জন্য শোক, অপর দিকে নিজের পুত্রকে এখনো ফেরত না পাওয়ার বেদনায় আমি ক্রমাগতভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছি। আরমানের স্ত্রী ও সন্তানেরা তার ঘরে ফেরার প্রত্যাশায় পথ পানে তাকিয়ে আছে। আমাদের পরিবার থেকে ঈদের আনন্দ বিদায় নিয়েছে। একজন মা হিসেবে আমি আশা করি আমার পরিবারের এ অসহায়ত্বের কথা বিবেচনা করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঈদুল আযহার পূর্বেই ব্যারিস্টার আরমানকে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। 
 
তাই আমার স্নেহের পুত্র ব্যারিস্টার মীর আহমাদ বিন কাসেম আরমানকে খুঁজে বের করে আমার কাছে ফিরিয়ে দেয়ার ব্যাপারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।”

 
(খন্দকার আয়েশা খাতুন)
ব্যারিস্টার মীর আহমাদ বিন কাসেম আরমানের মাতা