২৯ নভেম্বর ২০২০, রবিবার
Choose Language:

সর্বশেষ
ট্রাইবুনাল
রাষ্ট্রের কাছে ন্যায় বিচার প্রত্যাশা মুজাহিদের স্ত্রীর
১০ অক্টোবর ২০১৫, শনিবার,
গতকাল শুক্রবার বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের সাথে সাক্ষাৎ শেষে কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বেরিয়ে আসছেন তার পরিবারের সদস্যরা -সংগ্রাম
জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল সাবেক মন্ত্রী আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন তার স্ত্রী ও চার সন্তান। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে সাক্ষাৎ শেষে তার স্ত্রী তামান্না-ই-জাহান সাংবাদিকদের বলেন, উনার শারীরিক অবস্থা ভালো। মানসিকভাবে তিনি মজবুত আছেন। তিনি আল্লাহকে হাজির নাজির জেনে বলেছেন, তার বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। তিনি সম্পূর্ণ নির্দোষ, নির্দোষ এবং নির্দোষ।
গতকাল শুক্রবার বেলা ১০টা ৫০ মিনিটে আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের স্ত্রী তামান্না-ই-জাহান, তার ৩ ছেলে এবং ১ মেয়ে ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেন এবং সেখানে প্রায় আধা ঘণ্টা অবস্থান শেষে বেরিয়ে আসেন।
কারাগার থেকে বের হয়ে তামান্না-ই-জাহান সাংবাদিকদের বলেন, আমার স্বামী আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ দেশবাসীকে সালাম জানিয়েছেন এবং সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন। আল্লাহর রহমতে তিনি শারীরিকভাবে ভাল ও সুস্থ আছেন। মানসিকভাবে অবিচল ও দৃঢ়চেতা রয়েছেন। তিনি আল্লাহকে হাজির নাজির জেনে বলেছেন, তার বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। তিনি সম্পূর্ণ নির্দোষ।
তিনি বলেন, স্ত্রী হিসেবে আমিও সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, তিনি সম্পূর্ণ নির্দোষ। আমার স্বামী ঘরে বাইরে, ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবনে আল্লাহর রহমতে অত্যন্ত স্বচ্ছ ও সৎ জীবন যাপন করেছেন। ইতোমধ্যেই তিনি আইনজীবীদের মাধ্যমে রিভিউ আবেদন করার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেছেন।
তিনি আশা প্রকাশ করেন, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও প্রধান বিচারপতিসহ সকল দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষ ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে ভূমিকা রাখবেন। আমরা বিশ্বাস করি, ন্যায় বিচার নিশ্চিত করা হলে তার রিভিউ আবেদন মঞ্জুর হবে এবং তিনি বেকসুর খালাশ পাবেন ইনশাল্লাহ।
এ সময় তাদের ছোট ছেলে আলী আহমদ মাবরুরসহ ৩ ছেলে ও ১ মেয়ে উপস্থিত ছিলেন।
মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রেখে আপীল বিভাগের দেয়া রায় গত ৩০ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত হয়। এরপর গত ৩ অক্টোবর আইনজীবীরা তার সাথে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎ শেষে তার আইনজীবী শিশির মোহাম্মাদ মনির সাংবাদিকদের জানান, আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ আপিল বিভাগের চূড়ান্ত রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ পিটিশন) আবেদনের প্রস্তুতি নিতে পরামর্শ দিয়েছেন। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই রিভিউ পিটিশন দায়ের করা হবে।
http://www.dailysangram.com/news_details.php?news_id=207708