২৫ আগস্ট ২০১৯, রবিবার
Choose Language:

সর্বশেষ
ট্রাইবুনাল
মাওলানা সুবহানের মামলায় তদন্ত কর্মকর্তার প্রতিবেদন নিরপেক্ষ নয় গ্রহণযোগ্যও নয়
২৬ নভেম্বর ২০১৪, বুধবার,
জামায়াতে ইসলামীর সিনিয়র নায়েবে আমীর মাওলানা আবদুস সুবহানের মামলার যুক্তি উপস্থাপনকালে আসামীপক্ষের আইনজীবী মিজানুল ইসলাম বলেছেন, এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) ভুয়া রিপোর্ট দাখিল করেছেন। কেন না এ মামলায় কন্দরপুর ও সিন্দুরপুর গ্রামের নাম না থাকলেও তদন্ত কর্মকর্তা নুর হোসেন ওই দুটি স্থানে গণকবর পরিদর্শন করার কথা বলেছেন। মিজানুল ইসলাম বলেন, তদন্ত কর্মকর্তা আসামীপক্ষের জেরার জবাবে বলেছিলেন তিনি কন্দরপুর ও সিন্দুরপুর গণকবর পরিদর্শন করেছেন। পরে তিনি বলেছেন, ওই দুটি গ্রাম নদীগর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। এছাড়া মামলার গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষীরা কন্দরপুর ও সিন্দুরপুর গ্রামের কথা বলেননি।
গতকাল মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২-এ মাওলানা সুবহানের মামলার ষষ্ঠ অভিযোগের বিষয়ে যুক্তি উপস্থাপনকালে মিজানুল ইসলাম এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, আমরা হয়তো নিরপেক্ষ তদন্ত পাব না। তাই বলে গ্রহণযোগ্য তদন্তও কি পাব না?
ডিফেন্স পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করে মিজানুল ইসলাম বলেন, এই মামলার অভিযোগের সাথে মাওলানা সুবহান কোন ভাবেই জড়িত নন। এছাড়া যে সব ঘটনার কথা বলা হয়েছে তা রাষ্ট্রপক্ষের বর্ণনা অনুযায়ী ঘটেনি। আর যে সময় ঘটনা ঘটার কথা বলা হয়েছে সে সময় ওই ঘটনা ঘটেনি। রাষ্ট্রপক্ষের সাক্ষীরা যখন যেটা মনে করেছেন তখন সেটা বলেছেন।
তিনি আরো বলেন, আবদুল আলিমের যে বই রাষ্ট্রপক্ষ জমা দিয়েছে সেখানে মুকিমপুরের ঘটনা ’৭১ সালের ২৪ অক্টোবর সংগঠিত হয়েছে, বলা হয়েছে। যেখানে রাষ্ট্রপক্ষের সাক্ষী বলেছে ১২ মে তার বাবাকে ওই এলাকায় হত্যা করা হয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষ দেখিয়েছে ২৪ অক্টোবর মকিমপুরের ঘটনা ঘটেছে।
মিজানুল ইসলাম আরো বলেন, এই মামলার রাষ্ট্রপক্ষের ২৩তম সাক্ষী খোরশেদ আলম বলেছেন, ’৭১ সালে তার বয়স ছিল ১৮ বা ১৯ বছর। এখানে পুলিশ বাহিনীতে তার চাকরির সময় বয়সের বিষয় এসেছে। সে বলেছে ১৯৬৭ সালে আমি লেখা পড়া ছেড়েছি। আবার ’৭২ সালে শুরু করি। তিনি বলেন, জাতীয় পরিচয়পত্র সম্পর্কে মোবারক হোসেনের মামলায় ট্রাইব্যুনাল-১ একটি অভিমত দিয়েছেন। এ সময় ট্রাইব্যুনাল জানতে চান এই গোপন বিষয়গুলো আনা হচ্ছে কেন?
জবাবে মিজানুল ইসলাম বলেন, সেখানে তিনি মিথ্যা বললে এখানেও মিথ্যা বলতে পারেন।
গতকাল আসামীপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে আজ বুধবার পর্যন্ত মামলার কার্যক্রম মুলতবি করা হয়েছে। যুক্তি উপস্থাপনকালে মাওলানা সুবহানকে ট্রাইব্যুনালের কাঠগড়ায় আনা হয়। তারপক্ষে আইনজীবী মিজানুল ইসলাম ছাড়াও এসএম শাহজাহান, রায়হানুল ইসলাম ও আব্দুস সাত্তার পালোয়ান উপস্থিত ছিলেন।
http://www.dailysangram.com/news_details.php?news_id=165795