২৩ অক্টোবর ২০২০, শুক্রবার
Choose Language:

সর্বশেষ
ট্রাইবুনাল
আজ যুক্তি খন্ডন শুরু করবেন মাওলানা নিজামীর আইনজীবী
১৩ মার্চ ২০১৪, বৃহস্পতিবার,

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের কথিত অভিযোগে আটক বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর সাবেক মন্ত্রী বিশ্ববরেণ্য ইসলামী ব্যক্তিত্ব মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মামলায় দ্বিতীয় দফা যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের তৃতীয় দিনে সরকার পক্ষ অভিযোগ প্রমাণের পক্ষে তাদের বক্তব্য শেষ করেছে। গতকাল বুধবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে অপর দুই সদস্য বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি আনোয়ারুল হকের সমন্বয়ে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এ যুক্তিতর্ক পেশ করেন প্রসিকিউটর মোহাম্মদ আলি, সৈয়দ হায়দার আলী ও ড. তুরিন আফরোজ। তৃতীয় দিনে গতকাল সকালের সেশনে সরকার পক্ষে প্রসিকিউটর মোহাম্মদ আলী তার পূর্বদিনের যুক্তি উপস্থাপনের সূত্র ধরে অবশিষ্ট ৫টি অভিযোগের উপর আর্গুমেন্ট পেশ করেন। বিকালের সেশনে তুরিন আফরোজ ও হায়দার আলি ল’ পয়েন্টে যুক্তি উপস্থাপন করেন। এর মাধ্যমে গত তিন দিনে সরকার পক্ষ তাদের যুক্তি উপস্থাপন সমাপ্ত করেছেন। আজ বৃহস্পতিবার থেকে আসামী পক্ষের অভিযোগ খ-নের পক্ষে আর্গুমেন্ট পেশ করার সময় নির্ধারণ করেছেন ট্রাইব্যুনাল।
প্রসিকিউশনের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপনের শেষদিনে গতকাল তিনজন প্রসিকিউটরই মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদ- প্রার্থনা করেছেন ট্রাইব্যুনালের কাছে। মোহাম্মদ আলী বলেন,মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীই ছিলেন আলবদর বাহিনীর সর্বাধিনায়ক বা সুপ্রিম কমান্ডার। ১৯৭১ সালে তিনি ছিলেন নিখিল পাকিস্তান ইসলামী ছাত্রসংঘের সভাপতি। আমরা প্রমাণ দিয়ে দেখিয়েছি যে, ছাত্রসংঘের কর্মীদের নিয়েই আলবদর বাহিনী গঠন করা হয়েছিল। তার মূল সংগঠক ছিলেন মতিউর রহমান নিজামী। বুদ্ধিজীবী হত্যার মূল পরিকল্পনা তিনিই করেন।
মোহাম্মদ আলি বলেন,পাকিস্তান সেনাবাহিনীর উপর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ ছিল নিজামীর। তিনি উপস্থিত থেকে পাবনার বিভিন্ন গ্রামে সেনাবাহিনীকে ও রাজাকার আলবদরদের দিয়ে হত্যা, গণহত্যা, অগ্নিসংযোগ, লুণ্ঠন, ধর্ষণ ও নির্যাতন করিয়েছেন। কখনো কখনো তার উপস্থিতিতে ও নির্দেশে আবার কোথায়ও বা তার ইশারা মতে অপরাধ সংঘটিত হয়েছে।
তুরিন আফরোজ বলেন, ছোট বেলা থেকেই নিজামী ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী ও নেতৃত্বের গুণাবলী সম্পন্ন একজন মানুষ। তিনি বিভিন্নস্থানে বক্তৃতা করেছেন, কর্মীদের উদ্দেশ্যে চিঠি লিখেছেন আলবদর বাহিনীতে যোগ দেয়ার জন্য। অপরাধ সংঘটনে তিনি প্রত্যক্ষভাবে অংশ নিয়েছেন এবং তাদের অধীনস্থ কর্মী বা আলবদর বাহিনী বেছে বেছে বুদ্ধিজীবী হত্যাসহ সারা দেশে অপরাধ করেছে।
হায়দার আলি বলেন,১৬টি অভিযোগের মধ্যে একটি আমরা নট প্রেসড করেছি। বাকী ১৫টি অভিযোগ আমরা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে পেরেছি। আমরা আসামীর সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদ- প্রার্থনা করছি।
চূড়ান্ত আর্গুমেন্ট উপলক্ষে গতকাল বুধবারও পূর্বের দুই দিনের মত গাজীপুরস্থ কাশিমপুর কারাগারে আটক মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে কড়া পুলিশ প্রহরায় নিয়ে আসা হয় পুরাতন হাইকোর্ট ভবনস্থ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের হাজতখানায়। সরকার পক্ষের যুক্তি উপস্থাপনকালে তিনি ট্রাইব্যুনাল-১ এর কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন। পাঞ্জাবী-পাজামা ,মাথায় টুপি পরিহিত মাওলানা নিজামী এ সময় ছিলেন তার স্বভাব-সুলভ শান্ত ও স্বাভাবিক।
দ্বিতীয় দফা যুক্তি উপস্থাপনের প্রথম দিনে গতকাল বুধবার  আসামীপক্ষে উপস্থিত ছিলেন  এডভোকেট মিজানুল ইসলাম, ব্যারিস্টার নাজিব মোমেন, এডভোকেট আসাদ উদ্দিন, হাসানুল বান্না সোহাগ, আমিনুল ইসলাম বাপ্পি প্রমুখ। অপরদিকে বাদী পক্ষে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,প্রসিকিউটর মীর ইকবাল হোসেন, আলতাফ উদ্দিন, মোখলেসুর রহমান বাদল, হৃষিকেশ সাহা, সাইফুল ইসলাম, সায়েদুল ইসলাম সুমন, আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।
http://www.dailysangram.com/news_details.php?news_id=140791