১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার
Choose Language:

সর্বশেষ
নীতিমালা
প্রশাসনিক সংস্কার
২৯ ফেব্রুয়ারি ২০১২, বুধবার,
০১. স্বাধীন দেশের উপযোগী একটি সৎ, দক্ষ, দায়িত্বশীল, জবাবদিহি ও সেবামূলক প্রশাসন গড়ে তোলা হবে। 
০২. প্রশাসনকে দুর্নীতি মুক্ত করার জন্য সরকারী কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ও আর্থিক সুবিধা বৃদ্ধি করা হবে।
০৩. কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ ও পদোন্নতি দলীয় দৃষ্টিতে দেখা হবে না। বরং মেধা, দক্ষতা, যোগ্যতা, চরিত্র ও সিনিয়রিটির মাপকাঠিকে বিবেচনায় আনা হবে।
০৪. প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানসমূহকে আরো কার্যকরভাবে গড়ে তোলা হবে।
০৫. প্রশাসনের সকল পর্যায় থেকে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা ও প্রভুসুলভ আচরণ দূর করার প্রচেষ্টা চালানো হবে। এ ব্যাপারে কর্মকর্তাগণকে নৈতিক প্রশিক্ষণদান ও দেশ প্রেমে উজ্জীবিত করা হবে।
০৬. প্রশাসনে তদবীর বাণিজ্য কঠোরভাবে দমন করা হবে।
০৭. প্রশাসনে অহেতুক রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ বন্ধ করা হবে।
০৮. প্রশাসনের সর্বস্তরে E-Governance চালু করা হবে।