২৩ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার
Choose Language:

সর্বশেষ
ট্রাইবুনাল
মাওলানা ইউসুফের বিরুদ্ধে ১৪তম সাক্ষীর জবানবন্দী ডিফেন্স পক্ষের জেরা আজ
৩ ডিসেম্বর ২০১৩, মঙ্গলবার,
১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময়ে কথিত মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আটক জামায়াতে ইসলামীর সিনিয়র নায়েবে আমীর মাওলানা একেএম ইউসুফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের ১৪তম সাক্ষী বাবুল কুমার মিস্ত্রি গতকাল সোমবার ট্রাইব্যুনাল-২ এ জবানবন্দী প্রদান করেছেন। অবরোধের কারণে আসামীপক্ষের সিনিয়র আইনজীবী উপস্থিত না থাকায় এ সাক্ষীকে জেরার জন্য আজ মঙ্গলবার দিন ধার্য করেছেন ট্রাইব্যুনাল-২। এর আগে রাষ্ট্রপক্ষের ১৩তম সাক্ষী সুধাংশু ম-লের  দেয়া জবানবন্দীর ওপর ডিফেন্স পক্ষের আইনজীবীদের জেরা করার সুযোগ না দিয়েই ক্লোজ করে দেয়  ট্রাইব্যুনাল।
গতকাল সোমবার ট্রাইব্যুনালের কার্যক্রম শুরু হলে আসামীপক্ষের আইনজীবী গাজী এইচএম তামিম বলেন, সিনিয়র আইনজীবী আসতে পারেননি। সাক্ষীকে জেরার জন্য এক দিনের সময়ের প্রার্থনা করেন তিনি। ট্রাইব্যুনাল তাঁর এই আবেদনটি খারিজ করে পরবর্তী ১৪তম সাক্ষী রামপালের বাবুল কুমার মিস্ত্রির জবানবন্দী গ্রহণ করেন। এ সাক্ষীকে জেরার জন্য আজ মঙ্গলবার দিন ধার্য করেন ট্রাইব্যুনাল-২।
এদিকে ১২তম সাক্ষী মুক্তিযোদ্ধা শেখ মুহাম্মদ আফজাল হোসেনকে জেরার জন্য আসামীপক্ষের করা একটি রিভিউ আবেদন একই দিন শুনানির জন্য ধার্য করা হয়েছে। অবরোধের কারণে সিনিয়র আইনজীবী উপস্থিত না থাকায় গত ২৬ নবেম্বর এ সাক্ষীর জেরা ক্লোজ করে পরবর্তী সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য দিন ধার্য করেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। গতকাল সোমবার বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের দ্বিতীয় ট্রাইব্যুনাল এ দিন ধার্য করেন।
উল্লেখ্য গত ১ আগস্ট  মাওলানা একেএম ইউসুফের বিরুদ্ধে কথিত মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযোগ গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল। জামায়াতের এই নেতার বিরুদ্ধে হত্যা, গণহত্যা, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটসহ ৪ ধরনের ১৩টি অভিযোগ আনা  হয়েছে। এর মধ্যে হত্যার ৫টি, গণহত্যার ৭টি এবং অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ১টি অভিযোগ রয়েছে। যদিও এসব অভিযোগের সাথে মাওলানা ইউসুফের দূরতম কোন সম্পৃক্ততা ছিল না বলে তিনি নিজেই ট্রাইব্যুনালে বক্তব্য দিয়েছেন। ডিফেন্স পক্ষের আইনজীবীরাও মামলার শুনানিতে একাধিকবার বলেছেন সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশেই মাওলানা ইউসুফকে এই মামলায় জড়ানো হয়েছে।
http://www.dailysangram.com/news_details.php?news_id=133444