২৮ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার
Choose Language:

সর্বশেষ
ট্রাইবুনাল
জনাব আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের সাথে ডিফেন্স টীমের সাক্ষাৎ
২৬ জুলাই ২০১৩, শুক্রবার,
আজ ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারী জেনারেল কারাবন্দী জনাব আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের সাথে ডিফেন্স টীমের তিনজন আইনজীবী সাক্ষাৎ করেন। তারা হলেন, সুপ্রীম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী, ডিফেন্স টীমের প্রধান ব্যারিষ্টার আব্দুর রাজ্জাক, ইমরান-এ-সিদ্দিকী ও মতিউর রহমান আকন্দ।
সাক্ষাৎকালে জনাব আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ তার আপীল মামলার প্রস্তুতির বিষয়ে প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান করেন। যে ৫টি অভিযোগে তাকে সাজা দেয়া হয়েছে তার প্রত্যেকটি অভিযোগের ফ্যাক্টস্ এন্ড লিগ্যাল বিষয়সমূহ তুলে ধরে আপীলের প্রস্তুতি নেয়ার জন্য দিক নির্দেশনা দেন।
তিনি বলেন, “আমি ট্রাইব্যুনালে সাক্ষীদের প্রদত্ত্ব জনাববন্দী, জেরা ও আরগুমেন্ট অত্যন্ত মনোযোগের সাথে শুনেছি। আমাকে ঐসব মিথ্যা অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করার কোন সুযোগ নেই। প্রসিকিউশন আমার বিরুদ্ধে আনীত কোন অভিযোগই প্রমাণ করতে পারেনি। এই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা স্বীকার করেছেন, বাংলাদেশের কোথাও ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে সংঘটিত কোন অপরাধের কিংবা আমার আল-বদর, শান্তি কমিটি, রাজাকার, আশ-শামস বা এই ধরনের কোন সহযোগী বাহিনীর সাথে সম্পৃক্ততা ছিল এমন কোন তথ্য তিনি তার তদন্তকালে পাননি। এর পরও মাননীয় ট্রাইব্যুনাল আমাকে সর্বোচ্চ শাস্তি প্রদান করেছেন। আমি ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছি।
জনাব মুজাহিদ বলেন, “প্রতিদিন বাংলাদেশে শত শত লোক স্বাভাবিকভাবে মৃত্যুবরণ করে। এসব মৃত্যুর সাথে ফাঁসির আদেশের কোন সম্পর্ক নেই। কখন, কার, কিভাবে মৃত্যু হবে সেটা একমাত্র আল্লাহ তায়ালা নির্ধারণ করেন। আল্লাহর সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কোন সাধ্য কারো নেই। সুতরাং ফঁসির আদেশে কিছু যায় আসে না। আমি মৃত্যুদ-ের ঘোষণায় উদ্বিগ্ন নই।”
তিনি বললেন, “অন্যায়ভাবে কাউকে হত্যা করা গোটা মানব জাতিকে হত্যা করার শামিল। সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসার করণে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে যে শাস্তির ব্যবস্থা করেছে তার জন্য আমি মোটেই বিচলিত নই। আমি আল্লাহর দ্বীনের উদ্দেশ্যে আমার জীবন কুরবান করার জন্য সর্বদা প্রস্তুত আছি।
আমি বিশ্বাস করি আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মহামান্য সুপ্রীম কোর্টে মিথ্যা প্রমাণিত হবে এবং আমি জনগণের মাঝে ফিরে যাব ইনশাআল্লাহ।”
তিনি দেশবাসীর নিকট দোয়া চেয়েছেন ও সালাম জানিয়েছেন।