৭ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার, ২:৪২

৬৪ জেলাতেই করোনা, নতুন ৭৯০

নতুন তিনজনসহ মোট মৃত্যু ১৮৬; মোট আক্রান্ত ১১,৭১৯; উপসর্গ নিয়ে আরো এক সাংবাদিকসহ তিনজনের মৃত্যু; মোট সুস্থ হয়েছেন ১,৩২৭ জন

দেশে এক দিনে রেকর্ড ৭৯০ জনের মধ্যে নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১১ হাজার ৭১৯ জন। বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় আরো তিনজনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৮৬ জন হয়েছে। অনলাইনে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত বুলেটিনে অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা গতকাল বুধবার দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির এই সবশেষ তথ্য তুলে ধরেন। এ দিকে রাঙ্গামাটি জেলায় চারজন কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হওয়ার মাধ্যমে দেশের ৬৪ জেলায়ই করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মাঠপর্যায়ে কাজ করতে গিয়ে প্রাণ দিয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশের আরো এক সদস্য। করোনা আক্রান্ত হয়ে পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক রঘুনাথ রায় গতকাল সকালে মারা গেছেন। এ নিয়ে চলমান করোনাযুদ্ধে বাংলাদেশ পুলিশের ছয়জন সদস্য মৃত্যুবরণ করলেন। এ ছাড়া করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে আরো মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। তাদের মধ্যে ঢাকায় একজন সাংবাদিক, চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে একজন এবং টাঙ্গাইলের সখীপুরে একজন রয়েছেন।

অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে নাসিমা সুলতানা বলেন, বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৭৯০ জনের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এখন পর্যন্ত এক দিনে এটিই সর্বোচ্চসংখ্যক শনাক্ত হওয়া রোগী। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৭১৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন গেছেন তিনজন। তাদের মধ্যে একজন ঢাকার বাইরের রোগী। এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন মোট ১৮৬ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন মোট এক হাজার ৩২৭ জন।

নাসিমা সুলতানা আরো বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ছয় হাজার ৭৭১টি, এর মধ্যে পরীক্ষা করা হয়েছে ছয় হাজার ২৪১। এ পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৯৯ হাজার ৬৪৬ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে রাখা হয়েছে ১৮৪ জন মানুষকে এবং এ পর্যন্ত মোট আইসোলেশনে রয়েছেন এক হাজার ৭৯৪ জন। এ সময় সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ৮৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়েছে তিন হাজার ৮৮৯ জনকে, এ পর্যন্ত সর্বমোট কোয়ারেন্টিনে আছেন দুই লাখ এক হাজার ৭০০ জন। কোয়ারেন্টিন থেকে এ পর্যন্ত ছাড়া পেয়েছেন এক লাখ ৬০ হাজার ৫৬১ জন।

তিনি জানান, ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী পিপিই গত ২৪ ঘণ্টায় সংযোজিত হয়েছে ৮১ হাজার ৬৩০টি এবং বিতরণ করা হয়েছে ৪০ হাজার ৯২২টি। বর্তমানে মজুদ আছে চার লাখ ২১ হাজার ৪৮০টি। গত ২৪ ঘণ্টায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের হটলাইনে সমস্যা জানিয়ে ও স্বাস্থ্য পরামর্শের জন্য মোট ৫৮ হাজার ৮৮৫টি ফোনকল এসেছে। এ পর্যন্ত মোট ফোনকল এসেছে ৪১ লাখ তিন হাজার ৯৪৫টি। মোবাইল ফোন ও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ২৭ হাজার ৬৭৬ জনকে স্বাস্থ্য পরামর্শ দেয়া হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় স্ক্রিনিং করা হয়েছে ৫০১ জনের এবং মোট স্ক্রিনিং করা হয়েছে ছয় লাখ ৭৯ হাজার ৯০০।

সংবাদ ব্রিফিংয়ে অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা উল্লেখ করেন, নমুনা সংগ্রহের দায়িত্ব এখন আর আইইডিসিআর পালন না করলেও, বাড়ি থেকে বাইরে বের হওয়ার ক্ষেত্রে অক্ষম ব্যক্তি এবং শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে বাড়ি থেকে নমুনা সংগ্রহ করে আনা হবে। এ ছাড়া নমুনা সংগ্রহের জন্য বুথ তৈরি করা হচ্ছে।

দেশের ৬৪ জেলাতেই করোনাভাইরাস সংক্রমণ : রাঙ্গামাটি সংবাদদাতা জানান, শেষ পর্যন্ত রাঙ্গামাটিতে চারজনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে। রাঙ্গামাটি সিভিল সার্জন ডা: বিপাশ খীসা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এ নিয়ে দেশের ৬৪ জেলাতেই করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ল। তিনি জানান, গত ২৯ এপ্রিল আক্রান্তদের নমুনা চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজেজেজে (বিআইটিআইডি) পাঠানো হয়েছিল। বুধবার দুপুরে এই চারজনের রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

হাজীগঞ্জে উপসর্গ নিয়ে গৃহবধূর মৃত্যু : চাঁদপুর সংবাদদাতা জানান, চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ২০ বছরের এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি টিম মৃত গহবধূর নমুনা সংগ্রহ করেছে। ওই গৃহবধূর শ্বশুরবাড়ি হাজিগঞ্জ ৩ নং ওয়ার্ডের ধেররা পাটোয়ারী বাড়ি। তিনি গত চার-পাঁচ দিন ধরে জ্বর, পাতলা পায়খানা ও গলাব্যথায় ভুগছিলেন। ৩ মে সকালে তার জ্বর, পাতলা পায়খানা ও বমি হয়। পরে ৫ মে সকাল সাড়ে ১০টায় হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়। রাত সাড়ে ৮টায় হাসপাতালেই তার মৃত্যু হয়।

নৌপথে পালিয়ে বরগুনায় আসা ১৮ জন কোয়ারেন্টিনে
বরগুনা সংবাদদাতা জানান, নারায়ণগঞ্জ থেকে পালিয়ে নৌপথে বরগুনা ফিরছিলেন ১৮ ব্যক্তি। কিন্তু বাড়ি ফেরার আগেই পুলিশের কাছে ধরা পড়েছেন। আর বিধি মোতাবেক আপাতত তাদের ঠিকানা হয়েছে বরগুনা পৌরশহরের একটি প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে। গত মঙ্গলবার দুপুরে তাদের আটক করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন বরগুনা সদর থানার ওসি আবির হোসেন মোহাম্মদ। নারায়ণগঞ্জফেরত ওই ব্যক্তিরা বরগুনা সদর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দা।

সখীপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক প্রবাসফেরতের মৃত্যু
সখীপুর (টাঙ্গাইল) সংবাদদাতা জানান, টাঙ্গাইলের সখীপুরে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে আবদুল মালেক (৫০) নামের এক প্রবাসফেরতের মৃত্যু হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টায় তিনি নিজ বাড়িতে মারা যান। আবদুল মালেক উপজেলার গজারিয়া গ্রামের মৃত জাবেদ আলির ছেলে। রাতেই তার পরিবারের পাঁচজনের নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে। জানা যায়, বেশ কিছুদিন আগে মালেক তার পীর সাহেবের দরবার শরীফ মানিকগঞ্জে যান। সেখান থেকে বাড়ি আসার পর থেকে ঠা-া, জ্বর এবং শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আসমাউল হুসনা লিজা বলেন, আবদুল মালেকের পরিবারের সদস্যদের বাড়িতেই আইসোলেশনে রাখা হয়েছে।

চট্টগ্রামে চিকিৎসক, কোস্টগার্ড-পুলিশসহ আক্রান্ত ১৯
চট্টগ্রাম ব্যুরো জানান, চট্টগ্রামে দু’টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষায় চট্টগ্রামে ১৯ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে দুইজন চিকিৎসক, তিনজন পুলিশ ও কোস্টগার্ডের তিনজন আছেন। এ ছাড়া পুরনো একজন রোগীর দ্বিতীয়বার নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা: সেখ ফজলে রাব্বি গতকাল বুধবার দুপুরে নয়া দিগন্তকে বলেন, সিভাসুর ল্যাবে ১২২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে চট্টগ্রামের ১৩ জনের করোনা পজেটিভ পাওয়া গেছে। এর মধ্যে নতুন শনাক্ত ১৩ জন। ফিল্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন পুরনো একজনের করোনা পজেটিভ এসেছে।

করোনায় আক্রান্ত বিএনপির নেতার মৃত্যু : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রামে মির্জা ইসকান্দর মিয়া (৫০) নামে একজনের একজনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বুধবার বেলা ১১টার দিকে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এ নিয়ে চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত মৃতের সংখ্যা ৯ জনে দাঁড়াল। মির্জা ইসকান্দর নগরীর পাহাড়তলি থানা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও সরাইপাড়া ওয়ার্ড যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি সরাইপাড়া এলাকার বাসিন্দা।

খুলনায় করোনায় দ্বিতীয় মৃত্যু : খুলনা ব্যুরো জানায়, খুলনায় গত মঙ্গলবার রাত সোয়া ১০টার দিকে করোনায় আক্রান্ত একজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত জরিনা বেগমের (৬৫) বাড়ি রূপসা উপজেলার দেয়াড়া গ্রামে। এটি ছিল খুলনায় করোনার দ্বিতীয় মৃত্যু। করোনা হাসপাতালের চিকিৎসক ডা: শেখ ফরিদউদ্দিন আহমেদ জানান, মঙ্গলবার সকাল থেকেই ওই নারীর শারীরিক অবস্থা খুব খারাপ ছিল। শ্বাসকষ্টের পাশাপাশি তার ডায়রিয়া ছিল। রাত সোয়া ১০টার দিকে তার মৃত্যু হয়। করোনা হাসপাতাল সূত্র জানায়, জরিনা বেগম জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে গত ২২ এপ্রিল খুলনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন। গত ২৯ এপ্রিল তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। নমুনা পরীক্ষা করে ৩০ এপ্রিল তার করোনা পজিটিভ শনাক্ত হলে সে রাতেই তাকে খুলনা করোনা হাসপাতালে নেয়া হয়। মঙ্গলবার রাতে তিনি মারা যান। এর আগে গত ২২ এপ্রিল করোনা আক্রান্ত হয়ে রূপসা উপজেলার নূর আলম খান (৪৩) নামে একজন মারা যান। এদিকে, খুলনা মেডিক্যাল কলেজের পিসিআর ল্যাবে আরো একজনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ল্যাবে ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে সাতক্ষীরা জেলার দেবহাটা উপজেলার রেজাউল করিম গাজীর করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে।

সিলেট বিভাগে ৬৩ জন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীসহ আক্রান্ত আড়াই শ’ ছাড়িয়েছে : সিলেট ব্যুরো জানায়, সিলেটে নতুন করে আরো ১২ জনের কোভিড-১৯ পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে সিলেট বিভাগে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা আড়াই শ’ ছাড়িয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে স্বাস্থ্যসেবার সাথে জড়িত ৬৩ জন রয়েছেন। মঙ্গলবার ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের পিসিআর ল্যাবে ১৮৬ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়। এর মধ্যে ১২ জনের নুমনা পজিটিভ আসে। তাদের মধ্যে সিলেটের তিনজন, মৌলভীবাজারের আটজন ও হবিগঞ্জের একজন রয়েছেন। গত ৭ এপ্রিল থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত সিলেট বিভাগে ২৫৮ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে হবিগঞ্জে রয়েছেন ৭৬ জন, সুনামগঞ্জে ৫৮ জন, সিলেটে ৫৪ জন ও মৌলভীবাজারে ৩৪ জন।

জানা যায়, এ পর্যন্ত সিলেট বিভাগের চার জেলায় আক্রান্ত হয়েছেন স্বাস্থ্যসেবার সাথে জড়িত ৬৩ জন। তার মধ্যে সিলেট জেলায় ২৭ জন, হবিগঞ্জে ২৫ জন, সুনামগঞ্জে সাতজন ও মৌলভীবাজার জেলায় পাঁচজন রয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে ১১ জন চিকিৎসক, ১৭ জন ইন্টার্ন চিকিৎসক, একজন ডিপ্লোমা চিকিৎসক এবং ১০ জন নার্স রয়েছেন। বাকিরা হাসপাতাল বা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্যকর্মী। সিলেট বিভাগে সর্বপ্রথম করোনা রোগী যিনি শনাক্ত হয়েছিলেন, সেই ডা: মঈন উদ্দিন সিলেট নগরীর হাউজিং এস্টেটে বসবাস করতেন। তার বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতকে।

বরিশালে আরো তিনজনের শনাক্ত : বরিশাল ব্যুরো জানান, বরিশালে নতুন করে আরো তিনজনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৭ জনে। এ ছাড়া সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৫ জন। নতুন করে আক্রান্ত দুইজনের মধ্যে একজন উজিরপুর উপজেলার বাসিন্দা পুরুষ বয়স (৪৮), অন্যজন মেহেন্দিগঞ্জের বাসিন্দা নারী বয়স (৬০)। মঙ্গলবার রাতে জেলা প্রশাসনের মিডিয়া সেল সূত্রে জানা গেছে, ওই দুইজন ব্যক্তির অবস্থান অনুযায়ী তাদের লকডাউন করা হয়েছে। অন্যদিকে বাবুগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: সুভাষ সরকার জানান, গত ১ মে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া উপজেলার ব্রাহ্মণদিয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর হোসেন হাওলাদারের ছেলে সাব্বির হোসেনের (২০) শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

চুয়াডাঙ্গায় আরো সাতজন আক্রান্ত : চুয়াডাঙ্গা ও দামুড়হুদা সংবাদদাতা জানান, চুয়াডাঙ্গায় নতুন করে সাতজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া সদর উপজেলার বলদিয়া গ্রামের যুবক জাহিদুল ইসলামের শরীরে করোনাভাইরাসে অস্তিত্ব পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে জেলার স্বাস্থ্য বিভাগ। এ নিয়ে জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১৭ জনে। গতকাল বুধবার দুপুরে চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন ডা: এ এস এম মারুফ হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বগুড়ায় ব্যাংক কর্মকর্তা ও শিশু আক্রান্ত, সুস্থ হলেন পাঁচজন
বগুড়া অফিস জানায়, ঢাকায় ওষুধ কোম্পানিতে কর্মরত বগুড়ার ফুলতলার এক ব্যক্তি নিজে ও তার স্ত্রী করোনা আক্রান্তের পর তার একমাত্র সন্তান এবং একটি বেসরকারি ব্যাংকের এক কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এ ছাড়া বগুড়ায় করোনা আক্রান্ত আরো পাঁচজন আইসোলেশন কেন্দ্র থেকে সুস্থ হয়ে গতকাল বাড়ি ফিরেছেন। এ নিয়ে জেলায় সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরলেন সাতজন। আক্রান্ত শিশুটি তার বাবা ও নার্স মায়ের সংস্পর্শে আক্রান্ত হয়েছেন বলে ডাক্তাররা জানান। এ দিকে একটি বেসরকারি ব্যাংক সৈয়দপুর শাখার একজন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা করোনার উপসর্গ নিয়ে গত ২৮ এপ্রিল বগুড়া শহরের তার বাড়িতে আসেন। পরে তিনি তার শরীরের নমুনা পরীক্ষা করালে মঙ্গলবার তার রিপোর্ট পজেটিভ পাওয়া যায়। বগুড়ার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাক্তার মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

কুমিল্লায় ইউপি সদস্যসহ আক্রান্ত ১০ জন : কুমিল্লা সংবাদদাতা জানান, কুমিল্লায় টেকনিশিয়ানের সহযোগী ও ইউপি সদস্যসহ নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ১০ জন। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ গতকাল এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরীতে দুইজন, মুরাদনগর তিনজন, লাকসামে দুইজন, দেবিদ্বার দুইজন ও মনোহরগঞ্জের একজন রয়েছেন। লাকসামে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এর আগে আক্রান্ত প্যাথলজি টেকনিশিয়ানের এক সহযোগী ও মুদি দোকানি নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন। মুরাদনগরে তিনজন আক্রান্তের মধ্যে একজন ইউপি (ইউনিয়ন পরিষদ) সদস্য রয়েছেন।

সোনারগাঁওয়ে ছয় আনসার সদস্যসহ আরো ৯ জন আক্রান্ত : সোনারগাঁও (নারায়ণগঞ্জ) সংবাদদাতা জানান, নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ছয়জন আনসার সদস্য এবং স্বামী-স্ত্রীসহ আরো ৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। গতকাল বুধবার সকালে সোনারগাঁও উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: পলাশ কুমার সাহা এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় উপজেলা থেকে মোট ২৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠানো হয়। নমুনা পরীক্ষায় সেখান থেকে ৯ জনের করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসে। বাকি ১৪ জনের রিপোর্ট নেভেটিভ।

জামালপুরে নার্সসহ আরো পাঁচজন আক্রান্ত : জামালপুর সংবাদদাতা জানান, জামালপুরে বেসরকারি একটি ক্লিনিকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, মা-মেয়ে, নার্সসহ নতুন করে আরো পাঁচজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। নমুনা পরীক্ষা শেষে তাদের দেহে করোনাভাইরাস পজেটিভ পাওয়া গেছে। নতুন আক্রান্তরা জামালপুর সদর উপজেলার বাসিন্দা। এ নিয়ে জামালপুরে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৮১ জনে দাঁড়াল। গত মঙ্গলবার রাতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে জামালপুর স্বাস্থ্য বিভাগ। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে দুইজন হলেন মা ও মেয়ে। বয়স ২৯ বছর ও ১৩ বছর।

মুন্সীগঞ্জে নতুন সাতজনসহ আক্রান্ত ২০৪ : মুন্সীগঞ্জ সংবাদদাতা জানান, মুন্সীগঞ্জে নতুন করে সাতজন আক্রান্ত হওয়ার পর জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২০৪ জনে। এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে আটজন। আক্রান্ত নতুনদের মধ্যে সদর উপজেলায় চারজন, লৌহজং উপজেলায় একজন এবং শ্রীনগর উপজেলায় দুইজন। এর মধ্যে সদরে রয়েছে মঙ্গলবার মারা যাওয়া বাগেশ্বর কমিউমিনিটি ক্লিনিকের কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার আশরাফ-উল-ইসলাম। এ ছাড়াও মাঠপাড়ার একজন, মানিকপুরের একজন ও নওপাড়া এলাকার একজন। শ্রীনগরের একজন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের শিশু, বেজগাওয়ের একজন।

মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স আক্রান্ত
মেহেরপুর সংবাদদাতা জানান, মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালের কামরুন্নেছা নামের এক সিনিয়র স্টাফ নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। গতকাল বেলা ২টায় এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন মেহেরপুরের সিভিল সার্জন ডাক্তার নাসির উদ্দিন। তিনি জানান, গত ২ মে ওই সিনিয়র স্টাফ নার্সের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়। সেখান থেকে করোনা পজেটিভ বলে জানানো হয়।

গাংনীতে প্রথম দুইজন শনাক্ত : মেহেরপুরের গাংনীতে প্রথম দুইজন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। বুধবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা: রিয়াজুল আলম। আক্রান্ত ব্যক্তিরা হলেন- ষোলটাকা গ্রামের মৃত মজনুর রহমানের ছেলে মাহফুজুর রহমান ও রংমহল গ্রামের পলাশ আহমেদ। এ নিয়ে মেহেরপুরে জেলায় মোট পাঁচজন করোনা রোগী শনাক্ত হলো। এর মধ্যে মুজিবনগর উপজেলার ভরপাড়া গ্রামের ইদ্রিস আলী শাহ মৃত্যুবরণ করেছেন।

শরীয়তপুরে এক নারীসহ আরো আটজন আক্রান্ত : শরীয়তপুর সংবাদদাতা জানান, শরীয়তপুরে এক নারীসহ নতুন করে আরো আটজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে ডামুড্যা উপজেলার দারুল আমান ইউনিয়নে সাতজন ও শরীয়তপুর সদরের পালং ইউনিয়নে একজন। এ নিয়ে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা মোট ৪৭ জন। শরীয়তপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ের করোনা কন্ট্রোল রুমের সমন্বয়ক ডা: আব্দুর রশিদ গতকাল বুধবার দুপুরে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আক্রান্তদের মধ্যে একজন মহিলা ও সাতজন পুরুষ।

রাজাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্টাফ আক্রান্ত : ঝালকাঠি সংবাদদাতা জানান, ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের এক স্টাফের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আইইডিসিআর থেকে মঙ্গলবার রাতে নমুনা সংগ্রহের পাঠানো রিপোর্টে তার করোনা পজিটিভ আসে। এ নিয়ে জেলায় ১৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। এ ঘটনায় ওই স্টাফের গ্রামের বাড়ি ও আশপাশে আরো কয়েকটি ঘর লকডাউন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন ডা: শ্যামল কৃষ্ণ হাওলাদার।

ঝিনাইদহে আরো চারজনের করোনা পজেটিভ : ঝিনাইদহ সংবাদদাতা জানান, ঝিনাইদহে গতকাল বুধবার করোনাভাইরাসে নতুুন আক্রান্ত হয়েছেন আরো চারজন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৩২ জন। ঝিনাইদহ সিভিল সার্জন ডা: সেলিনা বেগম জানান, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বুধবার নতুন করে চারজন করোনাভাইরাসের নমুনার ফলাফল পজেটিভ এসেছে। মোট আক্রান্ত ৩২ জনের মধ্যে সাতজন চিকিৎসক, দুইজন নার্স, দুইজন পরিসংখ্যনবিদ, দুইজন অ্যাম্বুলেন্স চালক, একজন ল্যাব টেকনিশিয়ান ও একজন কুকসহ ১৭ জন স্বাস্থ্য বিভগের।

নওগাঁয় তিন চিকিৎসক ও দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ ৩২ জন আক্রান্ত
নওগাঁ ও ধামইরহাট সংবাদদাতা জানান, নওগাঁয় নতুন করে আরো ৩২ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে তিনজন চিকিৎকসহ সাতজন স্বাস্থ্যকর্মী ও দুইজন পুলিশ কর্মকর্তা রয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় করোনারাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৪৯ জনে। গতকাল দুপুরে জেলা সিভিল সার্জন অফিস থেকে প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানানো হয়।

রানীনগর (নওগাঁ) সংবাদদাতা জানান, নওগাঁর রানীনগর উপজেলায় নতুন করে মাত্র ছয় দিনের শিশুকন্যা ও চিকিৎসকসহ আরো সাতজনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে রানীনগর উপজেলায় মোট ১৩ জনের করোনা শনাক্ত হলো।

ধামরাই (ঢাকা) সংবাদদাতা জানান, ঢাকার ধামরাই উপজেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরো একজন শনাক্ত হয়েছেন। গত মঙ্গলবার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: নূর রিফফাত আরা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা জানান, পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জের মাধবখালী ইউনিয়নের কাঠালতলী গ্রামের প-িত বাড়িতে পঁচিশ বছর বয়সী এক নারী শিক্ষিকা প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ায় ১০টি ঘর লকডাউন করা হয়েছে। ওই বাড়ির ১১ জন ও কাঠালতলী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসা চারজনসহ ১৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করে বরিশাল পাঠানো হয়েছে।

শিবচর (মাদারীপুর) সংবাদদাতা জানান, শিবচরে গোপনে দাফনকৃত ঢাকার গোশত বিক্রেতার পরিবারের তিন সদস্য করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে শিবচর উপজেলায় আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে পৌঁছাল চব্বিশে। আক্রান্ত ওই পরিবারের এক সদস্য ঢাকায় মারা গেলে লাশ গোপনে শিবচরের উমেদপুরের বাড়িতে দাফন করা হয়।

নেত্রকোনায় ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মীসহ আক্রান্ত ৮ : নেত্রকোনা সংবাদদাতা জানান, নেত্রকোনায় একজন ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মীসহ নতুন করে আরো আটজন করেনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মঙ্গলবার ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মাইক্রোবায়োলজি ল্যাবে প্রেরিত ৩৯টি নমুনা পরীক্ষার পর আটজনকে শনাক্ত করা হয়। এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত মোট ৬৬ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। আর সুস্থ হয়েছেন ১৪ জন।

রাজশাহীতে করোনায় আক্রান্ত ১৭ হোম কোয়ারেন্টিনে ৭০
রাজশাহী ব্যুরো জানায়, রাজশাহীতে গত ২৫ দিনে আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ জনে। এর মধ্যে মারা গেছেন একজন। এ ছাড়া জেলায় এখন হোম কোয়ারেন্টিনে আছেন ৭০ জন। রাজশাহীতে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় ১২ এপ্রিল। এরপর ১৪ এপ্রিল দ্বিতীয় করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এরপর থেকেই রাজশাহী জেলাতে বিভিন্ন জায়গায় একের পর এক করোনা রোগী শনাক্ত হতে থাকে।

মিরসরাই (চট্টগ্রাম) সংবাদদাতা জানান, মিরসরাইয়ে এক স্কুলছাত্রীর করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। উপজেলার করেরহাট ইউনিয়নের অলিনগর গ্রামের ওই রোগী অলিনগর এল বি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রী। তাকে ফেনী ট্রমা সেন্টারে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। মিরসরাইয়ে এ পর্যন্ত তিনজনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) সংবাদদাতা জানান, দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার ভাদুরিয়া ইউনিয়নের এক যুবকের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে উপজেলায় মোট চারজন করোনা রোগী শনাক্ত হলো। আক্রান্ত ওই যুবক কয়েক দিন আগে ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে জ্বর নিয়ে বাড়িতে আসেন।

টাঙ্গাইল সংবাদদাতা জানান, টাঙ্গাইলে বুধবার নতুন করে আরো ১২৩ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এ নিয়ে টাঙ্গাইল থেকে ঢাকায় পাঠানো দুই হাজার ১২৩ জনের নমুনার মধ্যে ফলাফল এসেছে এক হাজার ৯৮০ জনের। এর মধ্যে জেলায় করোনা পজেটিভ ৩২ জন এবং মৃত্যু হয়েছে দুইজনের। জেলায় বর্তমানে চিকিৎসাধীন আছেন ২৩ জন। এ ছাড়া সাতজন সুস্থ হয়েছেন।

ফেনী সংবাদদাতা জানান, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ফেনীর দুই যুবক বুধবার সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। ছাগলনাইয়া ও সোনাগাজী উপজেলার বাসিন্দা এ দুইজনের দেহে ১৬ ও ২০ এপ্রিল করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে।

https://www.dailynayadiganta.com/first-page/500370