২৩ মে ২০১৭, মঙ্গলবার
Choose Language:

সর্বশেষ
বিজ্ঞপ্তি
মাওলানা নিজামী কে সরকারী সিদ্ধান্তে বিচারের নামে ফাঁসি দিয়ে হত্যার নিন্দা ও প্রতিবাদ
১১ মে ২০১৬, বুধবার,
আমীরে জামায়াত মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী কে সরকারী সিদ্ধান্তে বিচারের নামে ফাঁসি দিয়ে হত্যা করায় পাবনা জেলা জামায়াতের নিন্দা ও প্রতিবাদ ঃ  
 
বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর, পাবনার কৃতি সন্তান, ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শীর্ষ নেতা, সাবেক সফল মন্ত্রী, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ইসলামী চিন্তাবিদ ও পাবনার উন্নয়নের রুপকার মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে সরকার হত্যার উদ্দেশ্যে অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে তথাকথিত মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে মিথ্যা মামলা দায়ের করে সাজানো সাক্ষী দিয়ে মৃত্যুদন্ডে দন্ডিত করে গত রাত ১২.১০ মিনিটের সময় সরকারী ভাবে তাকে হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী পাবনা জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত আমীর ও জেলা সেক্রেটারী আজ ১১ মে ২০১৬ রোজ বুধবার নিম্নোক্ত বিবৃতি প্রদান করেছেনঃ- 
 
“মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী শুধু বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীরই নন, তিনি বিশ্ব ইসলামী আন্দোলনের অন্যতম নেতা ও পাবনার উন্নয়নের রুপকার। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত পাবনা জেলার দায়িত্ব প্রাপ্ত মন্ত্রী থাকা কালীন তিনি পাবনা জেলার শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নতি, চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নয়ন, বিচার বিভাগের উন্নয়নে জেলা জজ আদালতের নতুন ভবন নির্মাণ, রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পাবনা সার্কিট হাউজের নতুন ভবন নির্মান, কৃষির উন্নতি, বিদ্যুতের সম্প্রসারণ, রাস্তা, ব্রিজ, কালভার্টসহ যত বড় বড় উন্নয়ন হয়েছে সবকিছুতেই তার অবদান রয়েছে। তিনি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় মুসলমান, হিন্দু, বৈদ্ধ, খ্রিস্টান কোন পার্থক্য না করে সকলের মন্ত্রী হয়ে উঠেছিলেন। তিনি সকল ধর্মের সকল মতের মানুষ কে সমান গুরুত্ব দিতেন বিধায় পাবনা জেলার কোন মানুষ ১৯৭১ থেকে আজ পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোন থানায় একটি জিডি পর্যন্ত করেন নি।  তিনি মন্ত্রী থাকাকালিন তার বিরুদ্ধে একটি টাকার দুর্নীতিও কেউ প্রমান করতে পারেনি। সরকার তার এই আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তায় ভীত হয়ে ও জামায়াতে ইসলামীকে নেতৃত্ব শূন্য করার জন্য সরকার জামায়াতে ইসলামীর নেতৃবৃন্দকে হত্যার যে পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে তারই অংশ বিশেষ আজকের এই ফাঁসি কার্যকর তথা হত্যা কান্ড।  সরকার জামায়াতে ইসলামীর আমীর মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে আদালতের মাধ্যমে বিচারের নামে প্রহসন করে হত্যা করলো। তার এই হত্যার মাধ্যমে শুধু পাবনা নয় দেশবাসীসহ গোটা বিশ্ব একজন সৎ ও যোগ্য জন প্রতিনিধিকে হারালো এবং মুসলিম বিশ্ব হারালো একজন ইসলাম প্রচারককে । যে অভাব শতাব্দির পর শতাব্দি গেলেও পুরন হবে না। 
 
 মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর বিরুদ্ধে সরকারের পক্ষ থেকে যে সব অভিযোগ উত্থাপন করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা, ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও কাল্পনিক। তার মামলার একটি অভিযোগেও প্রত্যক্ষ স্বাক্ষী না থাকলেও সম্পূর্ণ বায়বীয় অভিযোগে তাকে মৃত্যু দন্ড দিয়ে হত্যা করলো সরকার। যে রায়ে জাতি সংঘ, এ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ বিশ্বের প্রায় সকল মানবাধিকার সংগঠন ও আন্তর্জাতিক আইন বিশেষজ্ঞগণ অসন্তোষ প্রকাশ করে এ বিচার প্রক্রিয়াকে ত্রুটিপূর্ন বলে আখ্যায়িত করে পূণঃবিচারের আহ্বান জানিয়েছেন, সরকার সেদিকে কর্ণপাত না করে প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য তরিঘরি করে তার রায় কার্যকরি করেছে। মাওলানা নিজামীর বিরুদ্ধে যে সকল অভিযোগ এনে ফাঁসি দেয়া হলো তা একটি স্বার্থন্নেষী মহল ছাড়া পাবনা জেলার কোন একজন মানুষও বিশ্বাস করে না। তারপরও মাওলানা নিজামীকে মৃত্যুদ-ে দ-িত করে হত্যা করায় দেশবাসী, আন্তর্জাতিক মহল ও মুসলিমবিশ্বসহ আমরাও বিস্মিত, হতবাক ও গভীরভাবে মর্মাহত। মাওলানা নিজামী ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।” 
 
আমরা মহান আল্লাহর নিকট এই মহা অবিচারের সুবিচারের দাবীতে আবেদন করে আমাদের প্রান প্রিয় নেতা শহীদ মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর মাগফিরাত কামনা করছি এবং তার শোক সন্তপ্ত পরিবার ও তার অনুসারীদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। আল্লাহ তায়ালা মাওলানা নিজামীকে শহীদ হিসেবে কবুল করুন। আমীন।