২০ মার্চ ২০১৭, সোমবার

মকবুল আহমাদ

ইসলামী আন্দোলনের পথে আল্লাহর সাহায্য পাওয়ার উপযুক্ত হওয়াই আমাদের কাজ

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম
ইসলামী আন্দোলনের পথে আল্লাহর সাহায্য পাওয়ার উপযুক্ত হওয়াই আমাদের কাজ

যুগে যুগে মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে এ জমিনে তাঁর প্রতিনিধিত্ব করেছেন নবী-রাসূলগণ। আমাদের প্রিয নবী মুহাম্মদ (সা.) হচ্ছেন খাতাম্মন নাবীয়্যিন আর আমরা হচ্ছি তাঁর উম্মত। একদিকে যেমন মুহাম্মদ (সা.)-এর উম্মত হিসেবে আমাদের রয়েছে অনেক মর্যাদা তেমনি নবী রাসূলগণ যে দায়িত্ব পালন করেছেন সে কঠিন দায়িত্ব আজ উম্মতে মুসলিমার উপর অর্পিত।

মুসলমানরা আজ তাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য ভুলে যাওয়ার কারণে পৃথিবীতে দেখা দিয়েছে অশান্তি, অনাচার, দূরাচার আর অরাজকতা। আর এই বিপর্যয় সৃষ্টি করছে কতিপয় মানুষ যার শীর্ষে রয়েছে শাসক গোষ্ঠী। তারা তাদের মনগড়া নিজস্ব মত, পথ, তত্ত্ব ও তথ্য দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। তারা দুনিয়ায় মানব রচিত মতাদর্শ কায়েমের মাধ্যমে শ্বাসত বিধান আল-ইসলাম থেকে মানুষকে ফিরাতে চায়। কিন্তু যারা মহাপরাক্রমশালী আল্লাহর উলুহিয়াত ও রাবুবিয়াতকে এই জমিনে কায়েম করতে প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা চালায় তাদের সাথে কায়েমী স্বার্থবাদীদের লড়াই অবধারিত। এই লড়াই যুগে যুগে নবী রাসূলদের সাথেও হয়েছে। জুলুম, নির্যাতন, অপপ্রচার, কারাবরণ, দেশান্তর এমনকি শাহাদাতের মতো ঘটনাও সংঘঠিত হয়েছে তাদের জীবনে। এটাই ইতিহাসের বাস্তবতা। সুতরাং যারাই এই পথে চলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো তাদের উপর জুলুম, নির্যাতন, অপপ্রচার, কারাবরণ, দেশান্তর তথা শাহাদাতের মতো ঘটনাও ঘটেছিল। এই সব কিছুর মধ্যে বিরোধীদের আসল লক্ষ্য হচ্ছে এই জমিন থেকে চিরতরে দ্বীনের মুলোৎপাটন করা। কিন্তু ইতিহাস সাক্ষী এই কাজে বাতিলরা কখনও সফল হয়নি, হবেও না ইনশাআল্লাহ।

সীমাহীন জুলুম-নিপীড়ন ও অত্যাচার সত্ত্বেও ঈমানদারগণ মহান আল্লাহ প্রদত্ত দায়িত্ব পালন করে যায় দ্বিধাহীন চিত্তে। কাংখিত মনজিলে পৌঁছার অদম্য স্পৃহায় তারা এগিয়ে চলে। কোন বাধাই তাদের চলার পথে প্রতিবন্ধক হতে পারেনা। নিম্নে এ সংক্রান্ত কিছু বর্ণনা তুলে ধরা হলো-