২ জানুয়ারি ২০১৭, সোমবার

কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ গঠন ও কাজ

১। আমীরে জামায়াতকে সর্বতোভাবে সহযোগিতা করিবার জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক নায়েবে আমীর, একজন সেক্রেটারী জেনারেল, প্রয়োজনীয় সংখ্যক সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল, বিভাগীয় সেক্রেটারী ও অন্যান্য সদস্য সমন্বয়ে কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ গঠিত হইবে।
২। কেন্দ্রীয় মহিলা কর্মপরিষদ সদস্যগণ বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য হইবেন।
৩। আমীরে জামায়াতের আহ্বানে কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হইবে।
৪। কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার প্রত্যেক নির্বাচনের পর মজলিসে শূরার সদস্যগণ কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ নির্বাচিত করিবেন।
৫। কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদের নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ার পর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদের প্রত্যেক সদস্য আমীরে জামায়াতের নিকট শপথ গ্রহণ করিবেন।
৬। কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা ও কেন্দ্রীয় মহিলা বিভাগীয় মজলিসে শূরা নির্বাচনে প্রতিনিধিত্বের আনুপাতিক হার নির্ধারণ করিবে। তবে কোন কারণে কর্মপরিষদের বৈঠক আহ্বান করা সম্ভব হইতেছে না এমতাবস্থায় কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ এ দায়িত্ব পালন করিবে।
৭। সামষ্টিকভাবে কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ এবং ব্যক্তিগতভাবে উহার সদস্যগণ আমীরে জামায়াত ও কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার নিকট দায়ী থাকিবেন।
৮। কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার বৈঠক হইতেছে না বা বৈঠক আহ্বান করা সম্ভব হইতেছে না, এমতাবস্থায় কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার সকল ক্ষমতা ও অধিকার প্রয়োগ করিতে পারিবে। কিন্তু কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদের কোন পদক্ষেপ কিংবা কোন ফায়সালার অংশবিশেষ বা সম্পূর্ণটাই নামঞ্জুর করিবার অধিকার কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরার থাকিবে।
৯। উক্ত (৭) উপধারায় বর্ণিত অবস্থায় কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ গঠনতন্ত্র সংশোধন অথবা আমীরে জামায়াতকে অপসারণ করিতে পারিবে না।